বাংলাদেশের বোলিংকে সমীহ করলেন উইলিয়ামসন |

বাংলাদেশের বোলিংকে সমীহ করলেন উইলিয়ামসন

January 12, 2017 at 10:32 am

ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশকে ‘বোলার’ কেন উইলিয়ামসনও বেশ ভুগিয়েছেন। মাঝেমধ্যে অফ স্পিন করেন, আর তাতেই ছয় ম্যাচে তুলে নিয়েছেন ৭ উইকেট! তবে আজ শুরু হয়ে যাওয়া টেস্ট সিরিজটা উইলিয়ামসন শুরু করছেন ব্যাটিংয়ে ‘হ্যাটট্রিক’ করে!
কীভাবে? বাংলাদেশের বিপক্ষে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টিতে ছয় ম্যাচে নিউজিল্যান্ড অধিনায়কের রান ২৮৫। তিনটি টি-টোয়েন্টিতে দুটি ফিফটিসহ ১৪৫ রান। এটিই তাঁকে উঠিয়ে এনেছে টি-টোয়েন্টি ব্যাটিং র‍্যাঙ্কিংয়ের চারে। ওয়ানডেতে আগে থেকেই র‍্যাঙ্কিংয়ের পাঁচে, টেস্টে চারে। তিন সংস্করণেই তিনি এখন সেরা পাঁচে, মানে হ্যাটট্রিক! এই মুহূর্তে এমন কীর্তি আর আছে শুধু ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলির।
অধিনায়কের সুখবর দিয়ে শুরু ওয়েলিংটন টেস্টটাও নিউজিল্যান্ডের জন্য একটা মাইলফলকের—ঘরের মাঠে তাদের ২০০তম টেস্ট! উইলিয়ামসনের কথায় মনে হয় না এটি নিয়ে তাঁরা রোমাঞ্চিত, ‘তেমন বিশেষ কোনো পরিকল্পনা নেই। মাঠে নেমে নিজেদের পরিকল্পনাটা যত ভালোভাবে সম্ভব কাজে লাগানোটা গুরুত্বপূর্ণ। সেটা করতে পারলেই জয়ের সম্ভাবনা অনেক বেড়ে যাবে।’
মাইলফলক নিয়ে না থাকুন, নিজের অর্জনেও তিনি রোমাঞ্চিত নন! এখানেও যেন উইলিয়ামসনের বৈরাগ্য, ‘ভালো লাগছে। তবে দিন শেষে আপনি নিজের কাজটা কত ভালোভাবে করলেন, সেটিই গুরুত্বপূর্ণ। মাঠে নামার পর এসব অর্জনের কোনো মানে থাকে না।’

শুধু তাঁর ব্যাটিংয়ের কারণেই নয়, অতীত অভিজ্ঞতার জন্যও বাংলাদেশের পরিকল্পনার একটা বড় অংশজুড়ে থাকবেন উইলিয়ামসন। বাংলাদেশের বিপক্ষে দুটি মাত্র টেস্ট খেলেছেন, ২০১৩ সালে চট্টগ্রাম ও ঢাকায়। বৃষ্টিবিঘ্নিত ড্র টেস্ট দুটিতেও আলো ছড়িয়েছিল উইলিয়ামসনের ব্যাট। তিন ইনিংসে করেছিলেন ১১৪, ৭৪ ও ৬২! এবারও ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টিতেও দেখিয়েছেন বাংলাদেশের বোলাররা তাঁর কতটা পছন্দের।

যদিও কাল সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশের বোলারদের প্রশংসায় ভাসিয়েছেন কিউই অধিনায়ক, ‘ওদের বেশ প্রতিভাবান কিছু পেসার আছে। তাদের ভালো পেস। হয়তো আমাদের কন্ডিশনে অভিজ্ঞতা একটু কম। ওদের হারাতে গেলে আমাদের সেরা ক্রিকেটটাই খেলতে হবে।’

ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টিতে সেরাটা খেলেই নিউজিল্যান্ড সিরিজের ফল করেছে ৬-০! তবে কিউই অধিনায়কের হারের মধ্যেও বাংলাদেশের লড়াইটা দেখেছেন, ‘সাদা বলে বাংলাদেশ প্রতিটি ম্যাচেই আমাদের ঝামেলায় ফেলেছে। সে রকম চাপ এখানেও থাকবে বলে মনে হচ্ছে।’

বাংলাদেশের জন্য টেস্ট মানেই অগ্নিপরীক্ষা। আর এই টেস্ট বেসিন রিজার্ভের সবুজ পিচে, যেখানে সামলাতে হবে বোল্ট-সাউদিদের বোলিং! উইলিয়ামসন কাল সেটি মনে করিয়ে দিয়েছেন, ‘বোল্ট ও সাউদি ওদের সেরা ফর্মে ফিরে আসছে। শেষ টি-টোয়েন্টিতে ট্রেন্ট (বোল্ট) সম্ভবত ১৪৫-১৪৬ কিমি গতিতে বোলিং করেছে। যখন ও এমন গতিতে বল করবে, পাশাপাশি বেশ সময় ধরে সুইংও পাবে, ও বিশ্বের সেরা বোলারদের একজন।’

এই প্রতিবেদন যখন পড়ছেন, কিউইদের পেস বোলিংয়ের মুখে বাংলাদেশকে পড়তে হয়েছে কি না বা পড়লেও কেমন করেছে, সেটি খানিকটা জেনে গেছেন।

প্রথম আলো

সর্বোচ্চ পঠিত