১৯, নভেম্বর, ২০১৭, রোববার | | ২৯ সফর ১৪৩৯

গুলির পর জবাই করে হত্যা নিশ্চিত করা হচ্ছে

০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ০৫:০৮

মরছে মানুষ, বাড়ছে লাশ।  এসব লাশের কোন খোজও কেউ রাখছে না।  কিন্তু কেন রাখছেনা ? কারন তারা রোহিঙ্গা।  গুলি আর জবাই করে হত্যা করছে তাদের।  হত্যাকারী নোবেল জয়ী অং সাং সু চির মিয়ানমার সেনাবাহীনি। 

মিয়ানমারের সেনাবাহীনি আর মারমা জনগোষ্ঠি মিলে রোহিঙ্গাদের গ্রামের গ্রাম জ্বালিয়ে দিচ্ছে।  গ্রামগুলি ঘিরে ফেলে মানুষকে গ্রাম থেকে বেড় হওয়ার রাস্তা বন্ধ করে দিয়ে নির্বাচারে জনগনের উপর গুলি চালাচ্ছে সেনারা।  মৃত্যু নিশ্চিত করতে জবাই করা হচ্ছে গুলির
পর।  নারীদের করা হচ্ছে ধর্ষণ। 

গত ২৫ আগষ্টের পর থেকে এখন পর্যন্ত প্রায় ২৫ হাজার অসহায় দুর্ভাগা রোহিঙ্গা মুসলিমদের এভাবে নির্দয় ভাবে হত্যা করেছে রাখাইন রাজ্যে।  ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়ে আছে লাশ।  লাশের স্তুপ থেকে ভেসে আসছে দুর্ঘন্ধ।   প্রান নিয়ে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গারা এভাবেই বর্ণণা দিলেন রাখাইন রাজ্যে মিয়ানমার সেনাদের অত্যাচারের।  

পালিয়ে আসা আরিফুর রহমান নামে একজন রোহিঙ্গা জানান, ব্যবসা  করে গাড়ি- বাড়ি সবই করেছিলেন তিনি।  শীততাপ নিয়ন্ত্রিত গাড়িও ছিল তার।  কিন্তু বাড়ি গাড়ি সব পুড়িয়ে দিয়েছে সেনারা।  
  
পালিয়ে আসা এক রোহিঙ্গা বলেন, মারমা গোষ্ঠির এক ধর্মীয় নেতা এক অনুষ্ঠানে মুসলিম বিদ্বেষী বক্তব্য দেয়ার পর থেকেই মুসলিমদের উপর অত্যাচার শুরু হয়েছিল।  ঐ নেতা সেনাবাহিনীর সাথে এক হয়ে নিরীহ মুসলিমদের উপর সন্ত্রাসী কার্যক্রম উষ্কে দিচ্ছে।  আগে মারমারা অত্যাচার করলে সেনারা এসে রক্ষা করত।  এবার সেনারাই গুলি করছে রোহিঙ্গাদের উপর।