২৪, নভেম্বর, ২০১৭, শুক্রবার | | ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯

মিয়া খলিফাকে ডিষ্টার্ব করে বিপাকে তারকা খেলোয়ার

১০ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ১১:১৩

নামি বাস্কেট বল তারকা তিনি।  তিনিই আবার গোপনে ‘বিরক্ত’ করে চলেছিলেন পর্নস্টার মিয়া খলিফাকে।  তাঁকেই সবার সামনে বেআব্রু করে দিলেন মিঁয়া।  তাঁর গোপন মেসেজ ফাঁস করে দিয়ে।  তাও আবার টুইটারে প্রকাশ্যে, সবার সামনে।  অবশ্য ‘গোপন’ বার্তা প্রকাশ্যে আসার পর দেখা যাচ্ছে, অশ্লীল বার্তা মোটেই পাঠাননি উইলসন কোন্টেরাস।  তিনি খেলেন চিকাগো কিউবস-এর হয়ে।  তিনি প্রথমে ডিরেক্ট মেসেজে খলিফাকে লেখেন, তিনি তাঁর বড় ভক্ত। 

এরপর কোনও প্রত্যুত্তর না পেয়ে
লিখতে থাকেন, ‘‘দারুণ ব্যাপার হবে, যদি আপনি হ্যালো বলেন। ’, ‘‘আশা করছি তুমি ভালই আছ’’।  তবে রিপ্লাই দেওয়ার বদলে কোয়েন্ত্রাসকে বিপাকে ফেলে তিনি সটান সেই মেসেজের স্ক্রিনশট নিয়ে টুইটারে পোস্ট করে দেন।  সঙ্গে লিখে দেন, ‘কাবিস তোমাদের প্লেয়ার আমার লেফট ফিল্ডে ঘোরাফেরা করছে।  আপনারা কী এসে ওনাকে নিয়ে যেতে পারেন?’’ যদিও পরে তারকা বাস্কেটবল তারকার এজেন্সি থেকে বলা হয়, তাঁর টুইটার অ্যাকাউন্ট হ্যাকড হয়ে গিয়েছে। 

এর আগেও এক ফুটবলার চ্যাড কেলির মেসেজ প্রকাশ্যে এনে বিব্রত করেছিলেন খলিফা।  আমেরিকার বিখ্যাত ফুটবলার চ্যাড কেলি।  তিনি অনেকদিনই লেবানিজ বংশোদ্ভুত মার্কিন পর্ণস্টার মিয়া খলিফাকে উত্যক্ত করে চলেছিলেন।  ইনস্টাগ্রামের ডিরেক্ট মেসেজে এর আগেও দু’বার ‘মুতোড়’ জবাব পেয়েছিলেন পেন্টহাউজের তালিকায় একনম্বর পর্নস্টার মিয়া খলিফার কাছ থেকে। 

তবে হাল না ছেড়ে চ্যাড কেলি তৃতীয়বারেও নিজের ‘ভাগ্য’ পরীক্ষা করে দেখেছিলেন মিয়ার কাছে।  তবে পরিবর্তে অভিনব ‘শাস্তি’ জুটল তাঁর।  বিরক্ত মিয়া কথোপকথনের পুরোটাই নিজের ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টে পোস্ট করে দেন। 

মিয়া খলিফার ১৫ লাখ ফলোয়ারের সামনে ধরা পড়ে গিয়ে বেজায় অস্বস্তিকর পরিস্থিতির সামনে পড়ে গিয়েছেন তিনি।  কী প্রস্তাব রেখেছিলেন তিনি মিয়ার কাছে? গত বছর সেপ্টেম্বর মাসে পোস্ট করা কথোপকথনে দেখা গিয়েছে, প্রথমে চ্যাড কেলি আবদার করেছিলেন যেন মিয়া খলিফা তাঁকে ইনস্টাগ্রামে ফলো করেন।  তবে মিয়া খলিফা জানান, তিনি চ্যাড কেলিকে ফলো করছেন একটাই কারণে তা হল তিনি সেমিনোল দলের সমর্থক।  পাশাপাশি তিনি চ্যাডকে পরামর্শ দেন খেলার ভুল ত্রুটি শুধরে নেওয়ার জন্য। 

চ্যাড কেলি এরপর জানতে চান, তাঁর কী কী দুর্বলতা রয়েছে।  মিয়া সাফ জানিয়ে দেন, লিগের বাইরে বিভিন্ন মহিলার ডিএম লুকিয়ে পড়া তাঁর সবথেকে বড় দুর্বলতা।  সেইসময় রণে ভঙ্গ দিলেও চ্যাড কেলি খলিফাকে কয়েকদিন পরে বিদ্রুপ করে মেসেজ করেন, ‘আপনার পেশা কি জানতে পারি? মানে আপনার বায়োডেটা পাঠাবেন আমাকে?’ এরপর খলিফা রেগে গিয়ে বেশ কিছু উত্তেজিত মেসেজ করেন।  তারপরেই পুরো চ্যাটটাই প্রকাশ্যে এনে দেন।