১৯, নভেম্বর, ২০১৭, রোববার | | ২৯ সফর ১৪৩৯

মিয়ানমারের উ্পর চাপ বাড়ছে

১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ০১:৫৭

রাখাইনে রোহিঙ্গা মুসলমানদের ওপর সেনাবাহিনীর দমন-পীড়ন বন্ধে মিয়ানমারের ওপর আন্তর্জাতিক চাপ আরও বেড়েছে।  চলমান সহিংসতা বন্ধের আহ্বান জানিয়ে গতকাল মঙ্গলবার যুক্তরাষ্ট্র বলেছে, পরিস্থিতিদৃষ্টে হোয়াইট হাউস ভীষণ বিরক্ত।  অং সান সু চির সরকারকে 'হিংস্র' আখ্যা দিয়ে রোহিঙ্গা গণহত্যার বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ ব্যবস্থা নিতে মুসলিম দেশগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ খামেনি।  রোহিঙ্গাদের ওপর নৃশংসতা চালানো হচ্ছে উল্লেখ
করে সু চির সমালোচনা করেছেন ফিলিপাইনের প্রেসিডেন্ট রড্রিগো দুতার্তে।  এদিকে রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে আলোচনার জন্য এরই মধ্যে সুইডেন ও যুক্তরাজ্যের আহ্বানে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ বৈঠকের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।  খবর রয়টার্স ও এএফপির।  


মিয়ানমারের রাখাইনে গত ২৫ আগস্ট থেকে চলা সংঘাতের ঘটনায় এ পর্যন্ত পৌনে চার লাখ রোহিঙ্গা পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে যুক্তরাষ্ট্র বলেছে, রোহিঙ্গা মুসলমানরা যেভাবে বাস্তুচ্যুত হচ্ছে, তাতে সুস্পষ্ট যে মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনী তাদের নাগরিকদের রক্ষা করছে না।  


এ ঘটনায় নিন্দা জানিয়ে বিবৃতি দেন হোয়াইট হাউসের প্রেস সচিব সারাহ হ্যাকাবে স্যান্ডার্স।  তিনি বলেন, মিয়ানমারের উত্তরাঞ্চলের রাখাইন রাজ্যের চলমান সংকট নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র ভীষণ বিরক্ত।  গত ২৫ আগস্ট নিরাপত্তা বাহিনীর চৌকিতে হামলার পর যেখানে অন্তত ৩ লাখ মানুষ তাদের বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে গেছে।  আমরা এ ধরনের হামলা ও সংঘাত বৃদ্ধির ঘটনায় আবারও নিন্দা জানাচ্ছি। 
হোয়াইট হাউসের ওই বিবৃতিতে বলা হয়, বার্মিজ নিরাপত্তা বাহিনীকে আইনের শাসন মেনে চলার আহ্বান জানাচ্ছি আমরা।  আমরা বলছি, এই সহিংসতা বন্ধ করুন।  কোনো জাতিগোষ্ঠীর মানুষকে যাতে আর ঘর হারাতে না হয় তা নিশ্চিত করুন।  
এছাড়া রোহিঙ্গাদের ওপর নৃশংসতার বিরুদ্ধে কঠোর নিন্দা জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের আন্তর্জাতিক ধর্মীয় স্বাধীনতাবিষয়ক কংগ্রেশনাল প্যানেল 'ইউএস কমিশন অন ইন্টারন্যাশনাল রিলিজিয়াস ফ্রিডম' (ইউএসসিআইআরএফ)।  প্যানেলের চেয়ারম্যান ডানিয়েল মার্ক সু চিকে আহ্বান জানিয়েছেন, রোহিঙ্গা মুসলমানদের রক্ষা করার।  তিনি রোহিঙ্গা মুসলমানদের ভয়াবহতাকে মানবিক বিপর্যয় বলে আখ্যায়িত করেন। 


সু চিকে তেহরানের চিঠি :রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে অভিযান বন্ধ করার আহ্বান জানিয়ে সু চির সরকারকে চিঠি দিয়েছে ইরান।  ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানির বিশেষ সহকারী শাহিনদোখ্ত মোল্লাভেরদি মিয়ানমারের নেত্রী 


অং সান সু চিকে লেখা এক চিঠিতে বলেন, আমরা আপনার কাছে আবেদন জানাচ্ছি, চলমান সহিংসতা বন্ধ করতে এবং দুর্গত জনগোষ্ঠীর কাছে আন্তর্জাতিক সাহায্য পেঁৗছে দিতে অবিলম্বে কার্যকর ব্যবস্থা নিন। 


এদিকে রোহিঙ্গা নির্যাতন ইস্যুতে মিয়ানমার সরকারকে 'হিংস্র' আখ্যা দিয়ে ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ খামেনি বলেন, মিয়ানমারের ইস্যু অবশ্যই রাজনৈতিক।  এটিকে বৌদ্ধ এবং মুসলমানদের মধ্যে সংঘর্ষ বলা যাবে না।  কারণ, সেখানে সরকারি মদদে এবং সরকারি বাহিনী রোহিঙ্গাদের ওপর হামলা করছে। 


খামেনি সু চির কড়া সমালোচনা করে ওআইসিকে রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে অবিলম্বে আলোচনা শুরুর আহ্বান জানান এবং ইরান রোহিঙ্গাদের পাশে থাকবে বলেও ঘোষণা দেন। 


খামেনি বলেন, বিশ্ব আজ চরম অস্থিতিশীল।  মুসলমানরা নির্যাতিত।  কিন্তু, মুসলিম নেতৃত্ব এসবের বিরুদ্ধে কণ্ঠ চড়াও করছে না।  এ জন্যই সন্ত্রাসী ও জায়োনিস্টরা বাহরাইন, ইয়েমেন ও মিয়ানমারের মুসলমানদের ওপর চেপে বসেছে।