২০, নভেম্বর, ২০১৭, সোমবার | | ১ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯

বড় ছেলে নাটকে বড় কিছু অসঙ্গতি

১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ০৩:৪৫

বড় ছেলে নাটকটি এবার ঈদের নাটকের মধ্যে সবচেয়ে আলোচিত একটি নাটক।  আর ফেসবুকের কল্যানে এখন বড় ছেলে অনলাইন দুনিয়ায় ভাইরাল।  ফ্রি তে এড হয়ে গেছে নাটকটির।  এই নামে ফেসবুক পেজ কিংবা ইভেন্টও খোলা হয়ে গেছে কয়েকটি।  নাটকটিতে একটি মধ্যবিত্ত পরিবারের গল্পকেই উপস্থাপন করা হয়েছে।  

এত আলোচনার মাঝেও নাটকটিতে রয়েছে কিছু অসঙ্গতি।  কি সেই অসঙ্গতি?

১. বড় ছেলে নাটকটিতে অপূর্বের বিষন্নমাখা মুখখানা ছাড়া মোটেও অভাবগ্রস্থ মনে হয়নি।  কারণ গায়ে একশার্ট
দুইবার দেখা যায়নি।  সাথে সবসময় চুলে জেল লাগিয়ে পরিপাটি করে রাখার বিষয়টি তো ছিলোই। 

২. বড় ছেলের মতো বাস্তবতায় কোটি কোটি রাশেদ আছে।  কিন্তু সেখানে ৪০ লাখ টাকার গাড়িতে বসে ১০ টাকার বাদামের অপেক্ষায় একটা মেহজাবিনও পাওয়া যাবে না কোথাও।  তাই এটিকে বাস্তবতাবর্জত বলেই মনে হয়েছে। 

৩. নাটকে অপূর্বর মধ্যবিত্ত ফ্লাট ও মেহজাবিনের উচ্চবিত্তের মধ্যে কোন পার্থক্য চোখে পড়েনি। 

৪. অপূর্ব তার গার্লফ্রেন্ডের কথা বাসায় একবারও বলেনি।  কিংবা মেহজাবিন তার বয়ফ্রেন্ডের কথা তার বাবা জানতে চাওয়ার পরও বলেনি।  বললে হয়তো দুই ফ্যামিলি মিলে কোন ব্যবস্থা করতে পারতো।  বাস্তবের দুনিয়ায় তাদের বিয়ে হতো তা না হলে তাদের প্রেম আগেই ভেস্তে যেত। 

৫. এই যুগে মেহজাবিনের মত এত বড়লোকের মেয়ের সাথে নিন্ম মধ্যবিত্ত পরিবারের ছেলের প্রেম কল্পনাই করা যায় না।  

৬. অপূর্বের বাবা ভালো ম্যাথ টিচার।  বাস্তবে এ ধরনের শিক্ষকরা স্কুলের বাইরেও প্রাইভেট ব্যাচ পড়িয়ে অনেক টাকা আয় করতে পারেন।  অথচ তিনি সেটা করেননি।  রিটায়মেন্টের পর অভাব থাকলেও বাসায় বসেই সময় পার করেন।  অথচ বাস্তবে হলে সে প্রাইভেট পড়াতেন কোচিংয়ে ক্লাস নিতেন।  এখন সবাই জানে ম্যাথের কোচিং বা প্রাইভেট পড়ালে কী পরিমাণ আয় করা সম্ভব।