২৪, নভেম্বর, ২০১৭, শুক্রবার | | ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯

নরসিংদী বিআরটিএ কার্যালয়ে দুদকের অভিযান সীল মেকানিক সুমন গ্রেপ্তার

১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ০৪:৩৯

সাইফুল ইসলাম রুদ্র, নরসিংদী প্রতিনিধিঃ নরসিংদীতে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের অভ্যন্তরে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ)- এর সীল মেকানিক সুমন (৩৬)কে ঘুষের মামলায় গ্রেপ্তার করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। 
১৪ সেপ্টেম্বর, সকাল ১১ টায় নরসিংদী জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের অভ্যন্তরে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ)- এর সীল মেকানিক সুমনকে হাতেনাতে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।  দুদকের উপ-পরিচালক মোহাম্মদ মোরশেদ আলম এর নেতৃত্বে ৮/১০ জন এর একটি বাহিনী
এ অভিযানে সরাসরি অংশগ্রহন করেন।  জানা গেছে, সুমনকে ৩৫ হাজার টাকা আত্মসাতের অভিযোগে মামলায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে ।  দুর্নীতি দমন কমিশনের সহকারী পরিচালক (সমন্বিত জেলা কার্যালয়, ঢাকা- ২) রেজাউল করিম এর দায়ের করা অভিযোগ হতে জানা যায় , ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রাপ্তির আবেদন প্রক্রিয়া ও পরীক্ষা ছাড়া ২৫ হাজার টাকার বিনিময়ে মোঃ ইয়াছিন আরাফাত এর নিকট হতে অবৈধভাবে নগদ ১০ হাজার টাকা ঘুষ গ্রহণ করে।  দন্ডবিধি’র ১৬১ ধারায় এবং সরকারী কর্মচারী হিসেবে ক্ষমতার অপব্যবহার, অপরাধজনক বিশ্বাসভঙ্গ ও অসদাচরনের দায়ে ১৯৪৭ সনের দুর্নীতি প্রতিরোধ ০২নং আইনের ৫(২) ধারার আইনের আওতায় এনে সুমনকে গ্রেফতার করা হয়।  এ ছাড়া গাড়ির ভুয়া লাইসেন্স দেওয়া ও লাইসেন্স ফি সরকারি কোষাগারে জমা না দিয়ে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে সুমনের বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে।  মামলার প্রধান আসামি হিসেবে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়।  মামলার এজাহারে আরো জানা যায়, জনাব মোঃ ইয়াছিন আরাফাত অভিযোগ করেন যে, তিনি নিজ চাকুরীর প্রয়োজনে গাড়ীর ড্রাইভিং লাইসেন্স করার জন্য সহকারী পরিচালক, বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি (বিআরটিএ), নরসিংদীর কার্যালয়ে গমন করেন।  সেখানে উক্ত কার্যালয়ের সিল মেকানিক জনাব সুমন কুমার সাহা তার লাইসেন্স করে দিবেন বলে জানান এবং উক্ত কার্যালয়ের ড্রাইভিং লাইসেন্স করে দিতে পারবেন।  ভুক্তভোগী ইয়াছিন আরাফাত সিল মেকানিক সুমন কুমারকে ঘুষ দিতে সম্মত ছিলেন না।  কিন্তু ঘুষ ছাড়া তিনি ড্রাইভিং লাইসেন্স করতে পারবেন না বিধায় সুমনের অনৈতিক প্রস্তাবের প্রেক্ষিতে তাকে প্রথমে ১০ হাজার টাকা এবং পরবর্তীতে বাকী ১৫ হাজার টাকা দিতে সম্মত হয়েছেন।  সুমন কুমার সাহা কর্তৃক সরকারী ক্ষমতার অপব্যবহারপূর্বক অবৈধভাবে নিজেকে লাভবান করার মানসে জনাব ইয়াছিন আরাফাত এর নিকট ঘুষ দাবী করায় তিনি বিষয়টি উপর আইননানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য গত ১৩/০৯/২০১৭ খ্রি: তারিখে উপপরিচালক, দুর্নীতি দমন কমিশন, সমন্বিত জেলা কার্যালয়, ঢাকা- ২ বরাবরে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।  পরবর্তীতে অভিযোগটির উপর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য দুর্নীতি দমন কমিশন, প্রধান কার্যালয়, ঢাকা হতে অনুমোদন প্রাপ্ত হয়ে ফাদ পেতে আসামী সুমনকে ঘুষের টাকাসহ হাতেনাতে আটক করার জন্য অভিযোগকারী মোঃ ইয়াছিন এর দেয়া ১০ হাজার টাকা ১৩ সেপ্টেম্বর, বুধবারে ইনভেন্টরী করে মোঃ ইয়াছিন আরাফাত’কে ফেরৎ দেয়া হয়।  পরে ১৪ সেপ্টেম্বর, বৃহ:স্পতিবারে বেলা ১১টার সময় আসামী সুমন কুমার সাহা’কে সহকারী পরিচালক (ইঞ্জি:), বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি (বিআরটিএ), নরসিংদীর কার্যালয়ে তার অফিস কক্ষে ১০ হাজার টাকা ঘুষ গ্রহণের বিষয়ে তাকে গ্রেফতার করা হয়।  এভাবেই দীর্ঘদিন যাবৎ নরসিংদীতে দায়িত্বরত বিআরটিএ কর্মকর্তারা বিভিন্ন সময় প্রটোকল ব্যবহার করে অবৈধভাবে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেয়ার ঘটনা ঘটে আসছে।