১৮, অক্টোবর, ২০১৭, বুধবার | | ২৭ মুহররম ১৪৩৯

গৌরির গর্ভে জন্মেনি আব্রাহাম, চাঞ্চল্যকর খবর

২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ০৫:৩২

খ্যাতির বিড়ম্বনা এই, খ্যাতিমানের জীবনে ব্যক্তিগত বলে কোনও জায়গা থাকে না।  এই মুহূর্তে সব থেকে বেশি মাত্রায় যাঁর ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে তুলকালাম চলছে সোশ্যাল মিডিয়ায়, তিনি আর কেউ নন, স্বয়ং বলিউড বাদশা শাহরুখ খান।  উন্মুক্ত প্রশ্নোত্তরের ফোরাম কোরা-য় এই মুহূর্তে বিপুল বিতর্ক তাঁর কনিষ্ঠ পুত্র আব্রামকে নিয়ে।  না, শাহরুখের এই ৪ বছর বয়সি দেবদূত-সুলভ চেহারার শিশুপুত্রটির কোনও দায় এতে নেই।  প্রশ্ন আর বাহাস, তার মা-কে নিয়ে। 

তর্কের মূলে রয়েছে একটি তথ্য। 
যা এই মুহূর্তে বেশ কিছু সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমে ভাইরাল।  শাহরুখের কনিষ্ঠ পুত্র আব্রাম নাকি সারোগেটেড চাইল্ড।  অর্থাৎ শাহরুখ তার বাবা হলেও তার গর্ভধারিনী মা শাহরুখ-পত্নী গৌরী খান নন।  অর্থাৎ এই সন্তানের জন্মের জন্য শাহরুখ গর্ভধাত্রীর আশ্রয় নিয়েছিলেন। 

সংবাদমাধ্যমে পরিবেশিত তথ্য অনুসারে, শাহরুখ ও গৌরীর দুই সন্তান— আরইয়ান খান এবাং সুহানা খান।  খান দম্পতি তৃতীয় সন্তানের পরিকল্পনা করছিলেন।  দু’বছর চেষ্টার পরে কোনও ফল না হওয়ায় তাঁরা দত্তক নেওয়ার কথা ভাবতে শুরু করেন।  বেশ কিছু আত্মীয় তাঁদের ইন ভিট্রো ফার্টিলাইজেশন বা আইভিএফ-এর শরণাপন্ন হতে বলেন।  এই পদ্ধতিতে অন্য কোনও গর্ভধাত্রীর সাহায্যে সন্তান লাভ করা যায়।  সন্তানাকাঙ্ক্ষী দম্পতির শুক্রাণু ও ডিম্বাণু এই পদ্ধতিতে অন্য কোনও মহিলার গর্ভে প্রতিস্থাপন করতে হয়।  ভ্রূণ সেখানেই বাড়ে। 

খান দম্পতি তাঁদের তৃতীয় সন্তানের জন্য আইভিএফ-এরই শরণ নেন।  তবে, গর্ভধাত্রীর নাম গোপন রাখা হয়।  বলিউডে এমন ঘটনা নতুন কিছু নয়।  এর আগেও বেশ কিছু তারকা-সন্তান এই পদ্ধতিতে জন্মেছে।  আমির খান ও কিরণ রাওয়ের সন্তানও এই পদ্ধতিতে জাত।  কিন্তু ঝামেলা পাকে শাহরুখের বেলাতেই।  মিডিয়ায় পাকতে শুরু করে কুম্ভীপাক।  কে শাহরুখের সন্তানের গর্ভধাত্রী, তাই নিয়ে জল ঘোলা হতে শুরু করে। 

এখনও পর্যন্ত যা জানা গিয়েছে, তার সারমর্ম এই— শহারুখ-গৌরীর কোনও আত্মীয়াই নাকি রাজি হন গর্ভধাত্রী হিসেবে অবতীর্ণ হতে।  এবং এই পদ্ধতিতেই আব্রাম ভূমিষ্ঠ হয়।  তাই যুক্তি অনুযায়ী, গৌরী খান আব্রামের গর্ভধারিনী নন।  আব্রামের জন্মের জন্য তাঁর ডিম্বাণু ব্যবহৃত হয়েছিল মাত্র।