২২, নভেম্বর, ২০১৭, বুধবার | | ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯

তেঁতুলিয়ায় সোনিয়া আত্মহত্যায় পুনঃ তদন্তের লাশ উত্তোলন, দুই আসামীর পাঁচ দিনের রিমান্ড

১৭ অক্টোবর ২০১৭, ০৫:২৪

সোহাগ হায়দার, পঞ্চগড় প্রতিনিধি : পঞ্চগড়ে তেঁতুলিয়ায় আলোচিত রহিমা আক্তার সোনিয়া (১৪) নামের নবম শ্রেণীর শিক্ষার্থীকে অব্যাহত ধর্ষণ ও ব্ল্যাকমেইল ও আত্মহত্যার প্ররোচণায় অভিযুক্ত আত্মহত্যায় প্ররোচণাকারী মনসুর আলী রাজন ও আতিকুজ্জামান আতিকে ৫দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদাতল।  

সোমবার তাদের তেঁতুলিয়া আমলি আদালত-৪ এ হাজির করে ১০ দিন করে রিমান্ড আবেদন করা হলে মঙ্গলবার (১৭ অক্টোবর) উভয়ের ৫ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন বিচারক মো. জাহাঙ্গীর আলম। 

গত
মঙ্গলবার ঘটনার পর থেকে গা ঢাকা দেয় রাজন ও আতিক।  তেঁতুলিয়া উপজেলাকে উত্তাল দেখে অবশেষে এই দুই আসামি গতকাল সোমবার (১৬ অক্টোবর) দুপুরে জামিনের জন্য আত্মসমর্পন করে।  বিচারক মো. জাহাঙ্গীর আলম তাদের জামিন নামঞ্জুর করে জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন।  

অপরদিকে, আদালতের নির্দেশে ধর্ষণের আলামত সংগ্রহে পুনরায় ময়নাতদন্তের জন্য মঙ্গলবার (১৭ অক্টোবর) সকাল ১১ঘটিকায় সোনিয়ার লাশ কবর থেকে উত্তোলন করে পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।  পঞ্চগড় জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট সোহরাব হোসেনের উপস্থিতিতে কবরস্থান থেকে সোনিয়ার লাশ উত্তোলন করা হয়।  এ সময় তেঁতুলিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সরেস চন্দ্র, মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা তেঁতুলিয়া থানার ওসি (তদন্ত) আব্দুস সবুর, ভাইস চেয়ারম্যান সুলতানা রাজিয়া, তেঁতুলিয়া ইউপি চেয়ারম্যান কাজী আনিসুর রহমানসহ বিপুল সংখ্যক এলাকাবাসি উপস্থিত ছিলেন। 

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ওসি (তদন্ত) আব্দুস সবুর ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। 

উল্লেখ্য, কাজী শাহাবুদ্দিন বালিকা স্কুল এন্ড কলেজের নবম শ্রেণীর মেধাবী ছাত্রী ও উপজেলার কালারাম জোত গ্রামের দিনমজুর পাথর শ্রমিক জাহেরুল ইসলামের কন্যা রহিমা আক্তার সোনিয়া (১৪)।  অব্যাহত ধর্ষণ আর তা ভিডিও ধারণ করে ভয়ভীতি দেখিয়ে এবং ব্লাকমেইল করার অপমান সইতে না পেরে গত মঙ্গলবার (১০ অক্টোবর) সকাল ৯.১০ মিনিটে অসহায় সনিয়া আত্মহত্যার পথ বেছেনেয়। 

এ ঘটনায় সনিয়ার পরিবার তেঁতুলিয়া থানায় আত্বহত্যা প্ররোচনা ও ধর্র্ষণ মামলা নিয়ে গেলে থানা পুলিশ সাড়া দেয় নি।  পরে গত ১৪ অক্টোবর শনিবার সোনিয়ার মা সেলিনা আক্তার বাদী হয়ে রাজন ও আতিকের বিরুদ্ধে তেঁতুলিয়া মডেল থানায় মামলা দায়ের করে।  যাহার মামলা নং- ৩, ধারা ৯ এর ক. তারিখ: ১৪/১০/২০১৭।