২২, নভেম্বর, ২০১৭, বুধবার | | ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে মহারানির আগমন, কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ

২৩ অক্টোবর ২০১৭, ১১:২৪

নির্যাতিত মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন রানি রানিয়া।  মিয়ানমারের রাষ্ট্রিয় সন্ত্রাস নরপশু সেনাবাহিনী এবং উগ্র ‍ বুদ্ধদের গণহত্যার হাত থেকে বাঁচতে বাংলাদেশে আসছে লাখো লাখো রোহিঙ্গা মুসলমান।  বার্মার কুখ্যাত সেনাবাহিনীর হাতে হাজারো নিহত নারী পুরুষসহ শিশুরা রেহাই পায়নি। 

সারা বিশ্ব আজ হতবিহবল।  জাতিসংঘ শুধু মুখের বুলি দিচ্ছে।  কার্যত কিছুই করছে না।  লাখো রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আশ্রয় নিচ্ছে।  নিজ দেশ মিয়ানমার থেকে মুসলমান বলে বিতারিত করে দিচ্ছে
এরা।  অথচ জাতিসংঘ নিষেধাজ্ঞা সহ শান্তিরক্ষা বাহিনী নিয়োগের ব্যাপারে কোন উদ্যোগ লক্ষ্য করা যায়নি।   

নির্যাতিত এসব মোহাজির বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের দেখতে আজ সোমবার  কক্সবাজারের উখিয়ার কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করবেন জর্ডানের রানি রানিয়া আল আব্দুল্লাহ।  বেলা পৌনে ১১টার দিকে বিমানে করে তার কক্সবাজার বিমানবন্দরে পৌঁছানোর কথা।  সেখানে থেকে চলে যাবেন কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পে। 

জর্ডানের রানির আগমন উপলক্ষে প্রশাসনের পক্ষ থেকে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে।  মোতায়েন করা হয়েছে অতিরিক্ত পুলিশ, বিজিবি ও র‌্যাবসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য। 

কক্সবাজারের পুলিশ সুপার ড. একএম ইকবাল হোসেন জানিয়েছেন, জর্ডানের রানির কক্সবাজারে আগমন উপলক্ষে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে।  পুলিশ,বিজিবির পাশাপাশি সাদা পোশাকেও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। 

রানি রানিয়া কুতুপালং ক্যাম্পে পৌঁছে রোহিঙ্গা নারী, পুরুষ ও শিশুদের অবস্থা দেখবেন এবং সেখানে জাতিসংঘের একাধিক সংস্থাসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ত্রাণ কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ করবেন। 

জর্ডানের রানি ইন্টারন্যাশনাল রেসকিউ কমিটির (আইআরসি) একজন বোর্ড সদস্য।  একইসঙ্গে তিনি জাতিসংঘের মানবিক সংস্থাগুলোর পরামর্শক।