২২, নভেম্বর, ২০১৭, বুধবার | | ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯

জাবিতে ভাইভা দিতে এসে আটক ৪ শিক্ষার্থী

১২ নভেম্বর ২০১৭, ০৭:২১

জাবি প্রতিনিধিঃ জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতি করে লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়া চার শিক্ষার্থী সাক্ষাৎকার (ভাইভা) দিতে এসে লেখার মিল না পাওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন তাদেরকে আটক করে। 

রবিবার (১২ নভেম্বর) সাক্ষাৎকার (ভাইভা) দিতে আসলে তাদেরকে স্ব-স্ব ইউনিটভুক্ত অফিস থেকে আটক করা হয়। 

আটকৃতরা হলেন, মাহবুব হোসেন, ইমাম হোসেন, অমিত হাসান, আশিকুল হাসা রবিন।  এদের মধ্যে তিনজন জালিয়াতির কথা স্বীকার
করলেও রবিন অস্বীকার করেছে।  পরে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন তাদেরকে পুলিশের হাতে তুলে দেয়।  পুলিশ তাদেরকে আটক করে আশুলিয়া থানায় নিয়ে যায়।  

বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর অফিস সূত্রে জানা যায়, আদমদিঘি উপজেলার তহিদুল ইসলামের ছেলে মাহবুব হোসেন ভর্তি জালিয়াতি চক্রের সদস্য সনদের সাথে সাড়ে তিন লাখ টাকা চুক্তি করেন।  চুক্তি অনুযায়ী মাহবুবের পরিবর্তে সনদ পরীক্ষা দেয়।  তাতে মাহবুব ‘ই’ ইউনিটে (বিজনেস স্টাডিজ অনুষদ) ৩য় স্থান লাভ করে। 

আরেকজন ময়মনসিংহ জেলার সদর থানার হাফেজ আব্দুল মান্নানের ছেলে ইমাম হোসেন।  তার পরীক্ষা ছয় লাখ টাকার বিনিময়ে রাহাত নামের একজন দিয়ে দিলে সে ‘এফ’ ইউনিটে (আইন ও বিচার অনুষদ) ৩য় স্থান লাভ করে। 

অন্যজন ঢাকা জেলার কেরানীগঞ্জের হারেছ মিয়ার ছেলে অমিত হাসান।  তার পরীক্ষাও ছয় লাখ টাকার বিনিময়ে সনেট দিয়ে দেয়।  এতে সে ‘এইচ’ (আইআইটি) ইউনিটে ১১তম স্থান লাভ করে। 

অন্যদিকে কুষ্টিয়া জেলার সদর থানার আবুল কালাম আজাদের ছেলে আশিকুল হাসা রবিন।  সে ‘এফ’ (আইন ও বিচার অনুষদ) ইউনিটে ১৬তম স্থান লাভ করে।  তার লেখার সাথে পরীক্ষার কাগজের লেখার মিল না পাওয়ায় তাকে আটক করা হয়।  সে জালিয়াতির কথা অস্বীকার করে বলেন, ‘আমি কোন জালিয়াতি করি নাই।  আমাকে এখন পরীক্ষা দিতে দিলে আমি পরীক্ষা দিব।  আমি নারভাস থাকার কারণে ঠিক মতো লেখতে পারিনাই। ’ 

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক তপন কুমার সাহা বলেন, ‘তার লেখার মিল না পাওয়ায় তাকে আটক করা হয়।  জিজ্ঞাসাবাদে মনে হয়েছে সেও অপরাধী।  তাই তাকে আশুলিয়া থানা পুলিশের হাতে সোপর্দ করা হয়েছে। '

আটকৃতদের বিষয়ে আশুলিয়া থানার এসআই নয়ন বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের অভিযোগ অনুযায়ী তাদেরকে আটক করা হয়েছে।  থানায় নিয়ে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। ’