১৯, নভেম্বর, ২০১৭, রোববার | | ২৯ সফর ১৪৩৯

জাবিতে ভর্তি জালিয়াতি, তিন দিনে আটক ১৪

১৪ নভেম্বর ২০১৭, ০৯:৪৫

জাবি প্রতিনিধি: জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাবি) ভর্তি জালিয়াতির অভিযোগে তিনদিনে ১৪ জনকে আটক করা হয়েছে।  সর্বশেষ আজ মঙ্গলবার (১৪ নভেম্বর) চারজনকে আটক করে আশুলিয়া থানায় সোপর্দ করা হয়। 
আজকের আটককৃতরা  হলেন-ময়মনসিংহের চরভিলা গ্রামের নুর মোহাম্মদের ছেলে ইয়াসীন আরাফাত।  গাজীপুরের শ্রীপুরের শেখ কামাল উদ্দীনের ছেলে শেখ পারভেজ আহমেদ।  মুন্সিগঞ্জ জেলার শ্রীনগর থানার আহমেদ আলীর ছেলে রাকিব হোসেন এবং নাটোরের লালপুর থানার আবু বক্কর সিদ্দীকের ছেলে
আবু রায়হান।  
 
ইয়াসিন 'সি ১' ইউনিটে ৫ম স্থান, পারভেজ  ‘সি’ ইউনিটে ১৫৫তম স্থান এবং রাকিব ‘সি’ ইউনিটে ৫৮ তম স্থান লাভ করেন। 

প্রক্টর অফিস সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার সাক্ষাৎকার দিতে আসলে উত্তরপত্রের লেখার সঙ্গে তাঁদের হাতের লেখার মিল না পাওয়ায় তাদের আটক করা হয়। 

আটকের পর বিশ্ববিদ্যালয়ের নিরাপত্তা কার্যালয়ে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। 

পারভেজ ও রাকিব জানান, যথাক্রমে ৪ লাখ ও আড়াই লাখ টাকার বিনিময়ে প্রক্সি পরীক্ষা দিয়ে তারা চান্স পান। 

অপর দুইজন আবু রায়হান ও ইয়াসীন আরাফাত জালিয়াতির কথা অস্বীকার করে বলেন, আমাদের পরীক্ষা আমরা নিজে দিয়েছি।  কিন্তু হাতের লেখা মিল না পাওয়ায় আমাদের আটক করে নিয়ে এসেছে। 

এর আগে একই অভিযোগে সোমবার (১৩ নভেম্বর) নিশাদ আহমেদ, নাঈমুর রহমান সরকার, আশরাফুজ্জামান নয়ন, মাহমুদুল রশিদ সৌরভ, নাঈমুর রহমান ও মো. রিজওয়ানকে আটক করা হয়। 

রোববার (১২ নভেম্বর) মাহবুব হোসেন, ইমাম হোসেন, অমিত হাসান ও আশিকুল হাসান রবিনকে আটক করা হয়। 

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক তপন কুমার সাহা বলেন, গত তিনদিনে জালিয়াতির অভিযোগে আটকদের পুলিশে সোপর্দ করা হয়েছে।  একইসঙ্গে তাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। 

আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. রকিবুল ইসলাম বলেন, আমি তাদের আশুলিয়া থানায় নিয়ে যাবো।  পরে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।