১৫, ডিসেম্বর, ২০১৭, শুক্রবার | | ২৬ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯

যদি হয় এসব, নিশ্চতই পরকীয়ায় আসক্ত আপনার সঙ্গী

২৯ নভেম্বর ২০১৭, ০১:১০

১. ফোন নিয়ে বাড়াবাড়ি: স্মার্টফোনের যুগে বাইরের দুনিয়ার সঙ্গে সংযোগ স্থাপন এখন আর কোনো ব্যাপারই না।  তাই বহু পরকীয়ার সূচনা হয় ফোনের মাধ্যমেই।  হঠাৎ করেই যদি লক্ষ্য করেন, সঙ্গী ফোন নিয়ে হয়ে গেছে বাড়াবাড়ি রকম ব্যস্ত, তবেই বুঝবেন, লক্ষণ ভালো নয়।  কল রিসিভ করতে ঘরের বাইরে চলে যাওয়া, ফোনের পাসওয়ার্ড বারবার পাল্টানো, ফোন অন্য কাউকে ধরতে না দেওয়া (বিশেষত আপনাকে), ফোনকে চোখের আড়াল হতে না দেয়া, কল বা ম্যাসেজ অ্যালার্ট আসামাত্রই তা ধরে ফেলা- এই ধরণের প্রবণতা সঙ্গীর
মধ্যে দেখা দিলে দাম্পত্যের বাইরেও তার অন্য জীবন রয়েছে কিনা- সে ব্যাপারে অনুসন্ধান করুন। 

২. ফ্যাশনে হঠাৎ পরিবর্তন : হঠাৎ করেই কি আপনার সঙ্গী আগের চেয়েও আকর্ষণীয় হয়ে গেছে? পুরান জামাকাপড়ের বদলে এখন তাকে দেখা যায় ঝলমলে রঙিন পোশাকে? আগের সুগন্ধির জায়গায় এসেছে নতুন পারফিউম? সেটা আবার থাকে তার অফিসের ব্যাগেই? শরীর সম্পর্কে উদাসীন ছিলো যে এতোদিন, হঠাৎ করেই সে শুরু করেছে ডায়েট কন্ট্রোল?- এ সবকিছুই হয়তো ঘটছে জীবনে নতুন কারও আগমনের ফলে। 

৩. কাজের সময়ে ব্যাপক পরিবর্তন: হঠাৎ করেই কি সঙ্গীর কাজের চাপ বেড়ে গেছে অনেক? বাসায় আসতে প্রায়ই হয়ে যাচ্ছে রাত? ঘনঘন ট্যুরেও যেতে হচ্ছে তাকে? কল করলেই শুনছেন, ‘মিটিঙে আছি, পরে কল দিও’? দুপুর বা রাতে বাসায় খাওয়া হচ্ছেই না? অফিসের কাজ বাড়িতেও নিয়ে আসার প্রবণতা তৈরি হয়েছে? বিশেষ করে সেই কাজের জন্য ল্যাপটপেই কাটিয়ে দিচ্ছে সারা রাত? - এরকম হলে সরাসরি সঙ্গীর অফিসে খোঁজ নিন। 

৪. আচরণে হঠাৎ পরিবর্তন: পরকীয়ার অন্যতম লক্ষণ এটিই।  আপনার বদরাগী সঙ্গী হঠাৎ করেই হয়ে গেছে নরম সুরের; আপনাকে ও সন্তানদের উপলক্ষ্য ছাড়াই ভাসিয়ে দিচ্ছে উপহারের জোয়ারে- প্রথমে উপভোগ করলেও, এর ফলাফল ভালো কিন্তু শেষতক ভালো হবে না।  উল্টোটাও ঘটতে পারে সহজেই।  মুখচোরা ও শান্তিপ্রিয় মানুষটি হঠাৎ করেই হয়ে যেতে পারে রগচটা।  হয়তো সারাক্ষণই কোনো না কোনো ভাবে সে আপনার খুঁত ধরতে ব্যস্ত।  একটুতেই বাধিয়ে দিচ্ছে ঝগড়া।  এধরণের আচরণগত পরিবর্তন দেখা দিলে বুঝে নিন, তৃতীয়পক্ষের প্রভাব আছে এতে। 

৫. যৌনাচরণে পরিবর্তন: বিছানায় আপনার প্রতি আর আগ্রহ নেই সঙ্গীর? দিনের পর দিন মিলন না হলেও কিছুই এসে যাচ্ছে না অপরপক্ষের? বুঝবেন, তার চাহিদার যোগান দিচ্ছে অন্য কেউ। 

ওদিকে নিতান্তই সাদামাটা যৌনতায় বিশ্বাসী সঙ্গী হঠাৎ করেই হয়ে যেতে পারে যৌনতা নিয়ে বাড়াবাড়ি আগ্রহী।  মিলনে নিত্যনতুন চাহিদা তৈরি করছে সে আপনার কাছে।  কারণ, অন্য কোথাও থেকে নতুন কিছুর স্বাদ পেয়েছে সে, এখন আপনার কাছ থেকেও এটাই চাই তার।  এমনটি যদি ঘটতে থাকে, তাহলে সঙ্গীর পরকীয়া গুরুতর অবস্থায় গিয়ে ঠেকেছে- এটাই ধরে নিন। 

৬. টাকা-পয়সার হিসাব না থাকা: সঙ্গীর ফোনের বিল দেখে চক্ষু চড়কগাছ? ক্রেডিট কার্ডের বিল দেখে মাথা ঘুরছে? অথচ’ ভেবেই পাচ্ছেন না, সংসারে কীভাবে হলো এতো খরচ? সন্দেহের তীরটা কিন্তু পরকীয়ার দিকেই যায়। 

অবশ্য এই লক্ষণ দেখা দিলে, সঙ্গী কার সঙ্গে পরকীয়া করছে, সেটা বের করাও খুব সহজ।  বিশেষ করে ক্রেডিট কার্ড কোথায় কখন ব্যবহার করা হয়েছে, আর অনলাইনে আর্থিক লেনদেন কার সঙ্গে হলো- আজকের যুগে এসব বের করা যায় ঘরে বসেই।