১৪, ডিসেম্বর, ২০১৭, বৃহস্পতিবার | | ২৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯

ছেলের কবরে শায়িত হবেন আনিসুল হক

০১ ডিসেম্বর ২০১৭, ০৩:৩৩

বনানী কবরস্থানে ছোট ছেলের কবরের ওপরে চিরনিদ্রায় শায়িত হবেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আনিসুল হক। ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের জনসংযোগ কর্মকর্তা এ এস এম মামুন পরিবর্তন ডটকমকে এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, ‘শনিবার নামাজে জানাজা শেষে বনানী কবরস্থানে মেয়রের মা ও শ্বাশুড়ির কবরের পাশে ছোট ছেলের কবরের ওপর আনিসুল হককে দাফন করা হবে। ’

লন্ডনে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গতকাল বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ সময় রাত ১০টা ২৩ মিনিটে মারা যান আনিসুল হক। 

আগামীকাল
শনিবার সকালে তার মরদেহ বাংলাদেশে আনা হবে।  এরপর বিকেল তিনটায় আর্মি স্টেডিয়ামে সর্বস্তরের মানুষ তাকে শ্রদ্ধা জানাবেন।  সেখানে বাদ আছর জানাজা শেষে তাকে বনানী কবরস্থানে দাফন করা হবে বলে পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছেন। 

মৃত্যকালে আনিসুল হকের বয়স হয়েছিল ৬৫ বছর।  মৃত্যুর সময় স্ত্রী রুবানা হক ও সন্তানরা তার পাশে ছিলেন। 

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র, নন্দিত টেলিভিশন ব্যক্তিত্ব, সফল উদ্যোক্তা ও ব্যবসায়ী এবং মোহাম্মদী গ্রুপের চেয়ারম্যান আনিসুল হক ১৯৫২ সালে নোয়াখালী জেলায় জন্মগ্রহণ করেন।  তার বাবার নাম শরিফুল হক।  আনিসুল হকের শৈশবের বেশ কিছু সময় কাটে তার নানাবাড়ি ফেনী জেলার সোনাগাজীর আমিরাবাদ ইউনিয়নের সোনাপুর গ্রামে। 

তিনি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে স্নাতক সম্পন্ন করেন।  এছাড়া আনিসুল হকের ভাই বর্তমান সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল আবু বেলাল মোহাম্মদ শফিউল হক। 

উল্লেখ্য, আনিসুল হক গত ২৯ জুলাই ব্যক্তিগত সফরে সপরিবারে লন্ডনে যান।  সেখানে অসুস্থ হয়ে পড়লে ১৩ আগস্ট তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। 

চিকিৎসকরা তার মস্তিষ্কের রক্তনালীতে প্রদাহজনিত সেরিব্রাল ভাস্কুলাইটিস রোগ ধরা পড়ার কথা জানিয়েছিলেন।  তার চিকিৎসা দীর্ঘমেয়াদি এবং আশানুরূপ আরোগ্য লাভ করতে কয়েক মাস সময় লাগতে পারে বলেও জানিয়েছিলেন তারা। 

দীর্ঘ কয়েক মাসের সব প্রচেষ্টা ব্যর্থ করে আনিসুল হক বৃহস্পতিবার চলে গেলেন না ফেরার দেশে।