২৩, ফেব্রুয়ারি, ২০১৮, শুক্রবার | | ৭ জমাদিউস সানি ১৪৩৯

বান্দরবান আলীকদম উপজেলাতে র‌্যাব ৭ অভিযান উদ্ধার তেরটি অস্ত্র ও গোলাবারুদ

২০ জানুয়ারী ২০১৮, ০১:১৭

চাইথোয়াইমং মারমা মং, বান্দরবান প্রতিনিধি : বান্দরবানের আলীকদম উপজেলাতে র‌্যাব ৭, সহ অন্যান্য যৌথবাহিনী অভিযান চালিয়ে তেরটি অস্ত্র এবং ১৯ রাউন্ড গোলাবারুদ উদ্ধার করা হয়।  উদ্ধার হওয়ার অস্ত্রের মধ্যে রয়েছে ৫টি এসবিবিএল এবং ৮টি সুটার গান।  রোজ শুক্রবার (১৯ ইং,জানুয়ারী২০১৮) বেলা ১২ টা ৩০ মিনিটে উপজেলার পানবাজারে নিকটতম স্থানের মটর সাইকেলে করে পাচার কালে র‌্যাব এইসব অস্ত্র ও গোলাবারুদ আটক করতে সক্ষম হয় ।  এসময় হাতেনাতে তিন জনকে আটক করেন। জানা গেছে,
আটককৃতরা হলেন উপজেলার কলার ঝিরি এলাকার আব্দুর রশিদ এর ছেলে মোঃ দুলাল(২৮), একই এলাকার মোঃ ইসলাফিল ছেলে আশকর আলী(১৮) ও আক্কাস আলীর ছেলে মোঃ ফারুখ(২৬)।  র‌্যাপিড একশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) এর এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য প্রকাশ করা হয়। 


প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে আরো জানান, র‌্যাব-৭, বিশ্বস্ত গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে জানতে পারে যে, বান্দরবান জেলার আলীকদম থানাধীন পানবাজার নিকস্ট’ জনৈক মোঃ আবুল কালামের আড়তের সামনে কিছুসংখ্যক অস্ত্র ব্যবসায়ী আগ্নেয়াস্ত্র ক্রয়-বিক্রয় করার উদ্দেশ্যে অস্থান করে।  তখন গোয়ান্দারা উক্ত তথ্যের ভিত্তিতে বেলা ১টা বিশ মিনিটে লেঃ কমান্ডার আশেকুর রহমান, (এক্স), বিএন এবং সিনিয়র এএসপি শাহেদা সুলতানা, পিপিএম এর নেতৃত্বে র‌্যাবের একটি চৌকষ আভিযানিক দল এসব অস্ত্র ও গোলাবারুদ আটক করেন। 
গ্রেফতারকৃত আসামীদের জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, তারা দীর্ঘদিন যাবত বিভিন্ন প্রান্তে বিক্রীত  জন্য অবৈধ অস্ত্র ব্যবসার সাথে জড়িত রয়েছে এবং ১নং আসামী  মোঃ দুলাল চট্টগ্রামের সীতাকুন্ড থানাধীন ছিন্নমুল এলাকার কুখ্যাত সন্ত্রাসী ‘‘মশিউর বাহিনীর’’ অন্যতম সদস্য বলে জানা গেছে।  তারা অবৈধ অস্ত্র দিয়ে বিভিন্ন সন্ত্রাসী কার্যকলাপ করে থাকে এবং এলাকায় প্রভাব বিস্তারের লক্ষ্যে তারা সর্বদা অবৈধ অস্ত্র মজুদ রাখে (বিশেষসূত্র প্রেস বিজ্ঞপ্তি)। 
স্থানীয় এলাকার সুত্র জানায়, আটককৃতরা আলীকদম উপজেলার সদর ইউনিয়নের কলারঝিরি এলাকার বাসিন্দা।  আটক ব্যক্তিরা দুটি মোটরসাইকেল নিয়ে ফুলঝাঁড়–র বা-িলের ভেতরে কৌশলে এসব অস্ত্র বহন করে অন্যত্র নিয়ে যাচ্ছিল।  গোপন সংবাদের মাধ্যমে র‌্যাব সদস্যরা অভিযান পরিচালনা করে তাদেরকে আটক ও অস্ত্র উদ্ধার করতে সক্ষম হন। 


ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন অপারেশন অফিসার সিনিয়র এএসপি সাহিদা সুলতানা।  আটককৃতদের বিরুদ্ধে আমর্স এ্যাক্ট, ১৮৭৮ এর ১৯-অ/(ভ) ধারা মোতাবেক বান্দরবান জেলার আলীকদম থানায় হস্তান্তরের কার্যক্রম দ্রুত পাঠানো হচছে বলে অাইন শৃংখলা বাহিনীরা সাংবাদিককে জানান।