১৯, ফেব্রুয়ারি, ২০১৮, সোমবার | | ৩ জমাদিউস সানি ১৪৩৯

ক্রিকেটের উন্নতির জন্য যাদের ভুমিকা বেশী বলে মনে করেন তামিম

১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০৯:৪৪

ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ততম সংস্করণ টি-টুয়েন্টি এখন পর্যন্ত ৬৯টি টি-টুয়েন্টি ম্যাচ খেলেছে বাংলাদেশ।  জয় মাত্র ২১ টি।  তাও আবার দুর্বল দলগুলোর বিপক্ষে।  তাই টি-টুয়েন্টিতে আরও উন্নতি করা উচিৎ বলেই মনে করেন দলের অন্যতম সেরা তারকা তামিম ইকবাল।  আশা করছেন এ সংস্করণে আরও ভালো খেলতে পারবে টাইগাররা। 

যেখান টি-টোয়েন্টি সবচেয়ে জনপ্রিয় সেখানে দল হিসেবে ওয়ানডেতে বাংলাদেশ যে পরিমাণ উন্নতি করেছে টি-টোয়েন্টিতে ঠিক ততটুকু হয়নি।  অথচ বাংলাদেশে আন্তর্জাতিক
মানের একটি লিগ হয়।  সেখান থেকে প্রতি বছর ভালো ভালো ক্রিকেটার আবিস্কৃত হচ্ছে। 
২০১৩ সালে মাত্র ৪টা টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলে বাংলাদেশ।  ২০১৪ সালে সেই সংখ্যা বেড়ে হয় ১০টি।  ২০১৫তে এসে আবার কমে যায় টি-টোয়েন্টি ম্যাচের সংখ্যা।  ২০১৫ সালে বাংলাদেশ মাত্র ৫টি ম্যাচ খেলে।  ২০১৬ সালে বিশ্বকাপ ও এশিয়া কাপ থাকায় বাংলাদেশ টি-টোয়েন্টি খেলে সর্বোচ্চ ১৬টি।  ২০১৭ সালে বাংলাদেশের খেলা টি-টোয়েন্টি ম্যাচের সংখা মাত্র ৭।  তবে নতুন ক্যালেন্ডারে বাংলাদেশের টি-টোয়েন্টি ম্যাচের সংখ্যা বাড়ছে। 

শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে অনুশীলনে নামার আগে মঙ্গলবার তরুণ ক্রিকেটারদের নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে তামিম বলেন, টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে বাংলাদেশের আরও ভালো করা উচিত, এই একটা ফরম্যাটে আমি বিশ্বাস করি আমরা যা করি তার চেয়ে আরও ভাল করতে পারি।  আমরা যা খেলছি তার চেয়ে অনেক ভাল খেলতে পারি।  পাশাপাশি এই ফরম্যাটে আমরা ইন্টারন্যাশনাল লেভেলের ডমেস্টিক টুর্নামেন্টও খেলি, সেটা হল বিপিএল।  সুতরাং এই একটা ফরম্যাটে আমাদের আরও ভাল করা উচিত।  আমি আশা করি আমরা আরও ভাল খেলতে পারি। 

তিনি আরো বলেন, আমার কাছে মনে হয় যে কোনও ক্রিকেটার লাগাতার দুই বা তিন বছর ঘরোয়াতে পারফর্ম করছে, জাতীয় দলে আসার পর তার একটা বা তিন-চারটা খারাপ ম্যাচ হতেই পারে।  তাকে ওই সময় সরিয়ে দেয়াটা আমার মনে হয় না কোনও সমাধান।  আমি মনে করি, যখনই তাকে নির্বাচন করা হয় তার ওই সক্ষমতা আছে এটাই চিন্তা করা হয়।  এজন্য যথেষ্ট সুযোগ দিতে হবে। 

বাংলাদেশ ক্রিকেটের উন্নতির জন্য সাংবাদিকরা গুরুপুর্ণ ভুমিকা রাখে মন্তব্য করে তামিম বলেন, আমারতো মনে হয় বাংলাদেশ ক্রিকেট দলে উন্নতির পিছনের গণমাধ্যমের ভূমিকা অনেক।  সাংবাদিকরা ক্রিকেটর বন্ধু।  মিডিয়া তাদের কাজ করবে আমরা আমাদের কাজ করবো। 

গত সোমবার বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের টেকনিক্যাল ডিরেক্টর খালেদ মাহমুদ সুজনের কথার রেশ ধরে তামিম বলেন,  সুজন ভাই সেদিন কি বলছে সেটা একমাত্র ওনার ব্যক্তিগত মতামত।  আমি শুধু আমার জায়গা থেকে আমার মতামত দিলাম।