যে কারণে বৌদ্ধ বিন লাদেনের পেজ মুছে দিয়েছে ফেসবুক

মিয়ানমারের অতি-জাতীয়তাবাদী আন্দোলনের পরিচিত মুখ উইথুরু রোহিঙ্গা মুসলিমদের বিরুদ্ধে উসকানিমূলক পোস্ট দিয়ে জাতিগত দাঙ্গা সৃষ্টির মূল হোতা ছিলেন তিনি। সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা মুসলিমদের বিরুদ্ধে উসকানিমূলক পোস্ট দিয়ে ব্যাপক সংখ্যক ফলোয়ার বাড়িয়েছেন উগ্র এ বৌদ্ধ সন্ন্যাসী।

তিনি বৌদ্ধ বিন লাদেন খ্যাত উগ্রপন্থি সন্ন্যাসী উইরাথুর। ক্রমাগত মুসলিমবিরোধী পোস্ট দেয়ায় বৌদ্ধ সন্ন্যাসীর উইরাথুর পেজ গেলো জানুয়ারিতে মুছে ফেলা হয়েছে। ফেসবুক কর্তৃপক্ষ বৌদ্ধ বিন লাদেন খ্যাত উগ্রপন্থি সন্ন্যাসী উইরাথুর ফেসবুক পেজ মুছে দেয়া হয়েছে। ফেসবুক কর্তৃপক্ষ সোমবার এই তথ্য জানিয়েছে।

সোমবার এএফপিকে ফেসবুকের এক মুখপাত্র বলেছেন, উইরাথুর পেজ মুছে ফেলা হয়েছে।

ই-মেইলে দেয়া এক বার্তায় ফেসবুকের ওই মুখপাত্র বলেন, কোনো সংস্থা ও ব্যক্তি যারা অন্যের বিরুদ্ধে সহিংসতা ও ঘৃণার বিস্তার ঘটায় তারা আমাদের কমিউনিটির নীতিমালা অনুযায়ী নিষিদ্ধ। যদি কোনো ব্যক্তি ধারাবাহিকভাবে ঘৃণাত্মক কনটেন্ট শেয়ার করে, তাহলে সাময়িক নিষিদ্ধ ও অ্যাকাউন্ট মুছে ফেলাসহ বেশ কিছু ব্যবস্থা নেয়া হয় তার বিরুদ্ধে।

তবে উইরাথুর ফেসবুক পেজ মুছে ফেলার ব্যাপারে তার কোন মন্তব্য পাওয়া যায়নি। গেলো বছর এক ভিডিও বার্তায় তিনি বলেন, তার ফেসবুক পেজ এক মাসের জন্য সাময়িক নিষিদ্ধ করেছে ফেসবুক। কারণ হিসেবে তিনি বলেন, মুসলিমরা ফেসবুক দখলে নিয়েছে।

আধা-বেসামরিক সরকার মিয়ানমারের ক্ষমতায় আসার পর ২০১৩ সালে টেলিকম খাতের সম্প্রসারণে বেশ কিছু পদক্ষেপ নেয়ায় দেশটিতে দ্রুত জনপ্রিয় হয়ে উঠে ফেসবুক। উগ্রপন্থী উইরাথুর মতো আরও অনেক বৌদ্ধ মুসলিমবিরোধী বিদ্বেষ ছড়িয়ে অল্প সময়েই তারকা খ্যাতি পান।

গেলো বছরের ২৫ আগস্ট রাখাইনে মিয়ানমার সেনাবাহিনী ‘ক্লিয়ারেন্স অপারেশন’ শুরু করলে প্রায় সাত লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পালিয়ে আসে। জাতিসংঘ ও যুক্তরাষ্ট্র এটিকে জাতিগত শুদ্ধি অভিযান হিসেবে বর্ণনা করেছে।