ইয়াবা দিয়ে ফাঁসাতে গিয়ে ধরা খেলেন পুলিশ কর্মকর্তা

ইয়াবা দিয়ে ফাঁসাতে গিয়ে ধরা খেলেন এক পুলিশ কর্মকর্তা। যশোরে এক স্বর্ণ ব্যবসায়ীর ছেলের পকেটে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানোর সময় জনতার হাতে আটক হন পুলিশের এক এসআই। স্বর্ণ ব্যবসায়ীর নাম বাপ্পী।

চৌগাছা বাজারের মঙ্গলবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে স্বর্ণপট্টিতে অবস্থিত সেন কে জুয়েলার্সে এ ঘটনাটি ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, এসআই কামরুজ্জামান, এএসআই আকবর ও এক কনস্টবল সেনকে জুয়েলার্সে আসে। এসময় মালিক রবিন সেনের বড় ছেলে বাপ্পীর পকেটে কাগজে মোড়ানো অবস্থায় ইয়াবা দিয়ে আটকের চেষ্টা চালায়। ঘটনাটি টের পেয়ে দরজায় তালা লাগিয়ে ওই দোকানের লোকজন চিৎকার শুরু করে। পরে জনতা এসে বাপ্পীকে উদ্ধার করে এবং এসআই কামরুজ্জামানকে আটক করে। এসময় এএসআই আকবর ও কনস্টবল পালিয়ে যায়।

ঘটনার খবর পেয়ে চৌগাছা থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খন্দকার শামীম হোসেন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে জনতার হাত থেকে এসআইকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।

এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবি করে দোকান-পাট বন্ধ করে দেয় বাজার কমিটি। এসময় তারা ওসিসহ ওই পুলিশদের প্রত্যাহারের দাবিতে বিক্ষোভ করে। বর্তমানে ওই এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।

চৌগাছা থানা সেকেন্ড অফিসার এসআই আকিক বলেন, আসলে ঘটনাটি একটি ভুল বোঝাবুঝি। এখন মাইকিং হচ্ছে দোকানপাট বন্ধ করে ওরা ঘটনার সুষ্ঠু সমাধান চাইছে। আমরা সবাই এখন ব্যস্ত আছি।

এ ব্যাপারে বাজার কমিটির সাধারণ সম্পাদক ইবাদত হোসেন বলেন, এই ঘটনায় ওসিসহ ২ এএসআই ও কনস্টবলকে প্রত্যাহার না করা পর্যন্ত আন্দোলন থামবে না। আমাদের মাইকিং হচ্ছে আমরা মিছিল সমাবেশ করবো।

এ ব্যাপারে জানার জন্য চৌগাছা থানার ওসি খন্দকার শামীম হোসেনকে ফোন করা হলে তিনি ব্যস্ত আছি বলে ফোনের লাইনটি কেটে দেয়।