ক্রিকেট খেলুড়ে ১৮টি দেশের সাথে বাংলাদেশের হার-জিতের পরিসংখ্যান

১৯৮৬ সালে বাংলাদেশ দল তাদের ক্রিকেটের যাত্রা শুরু করলেও ওয়ানডে স্ট্যাটাস বাংলাদেশ দল পায় ১৯৯৭ সালে। একের পর এক সব দলকেই হারায় বাংলাদেশ দল। এক নজরে দেখা যাক বাংলাদেশ দলের ওয়ানডে ম্যাচের হার-জিত পরিসংখ্যানঃ

১। আফগানিস্তানের সাথে ৫ ম্যাচের ৩টি তে জয় ও ২টি তে হার।
২। অস্ট্রেলিয়ার সাথে ২০ ম্যাচের মাত্র ১টি তে জয়, ১৮টি তে হার এবং ১ ম্যাচ পরিত্যক্ত।
৩। ইংল্যান্ডের সাথে ২০ ম্যাচের ৪টি তে জয়,তারমধ্যে বিশ্বকাপেই ২ জয় (২০১১ ও ২০১৫ তে) আর ১৬টি তে হার।
৪। ইন্ডিয়ার সাথে ৩৩ ম্যাচের ৫টি তে জয় (২০০৭ বিশ্বকাপে বাংলাদেশের সাথে হেরেই বিদায় নিতে হয় তাদের),হার ২৭ ম্যাচে আর ১টি ম্যাচ পরিত্যক্ত হয়েছে।
৫। আয়ারল্যান্ডের সাথে ৯ ম্যাচের ৬টি তে জয়, ২টি তে হার ও ১ ম্যাচ পরিত্যক্ত।
৬। নিউজিল্যান্ডের সাথে ৩১ ম্যাচে আমাদের ২য় সর্বোচ্চ (১০) জয় ও ২১ হার।
৭। পাকিস্তানের সাথে ৩৫ ম্যাচে ৪ টি তে জয়,১ম জিতেছিলাম ১৯৯৯ সালে, তার ঠিক ১৬ বছর পর আমরা তাদের বাংলাওয়াশ করে দিয়েছিলাম (৩ ম্যাচের ৩টি তেই জয়) ও হার ৩১ ম্যাচে।
৮। জিম্বাবুয়ের সাথে সবচেয়ে বেশি ৬৯টি ম্যাচ খেলেছি। তবে তাদের সাথে বাংলাদেশের জয়ের সংখ্যাটাও সর্বোচ্চ (৪১টি), হেরেছি ২৮টি ম্যাচ।
৯। দক্ষিণ আফ্রিকার সাথে ২০ ম্যাচের ৩টি তে জয় ও ১৭টি তে হার।
১০। ওয়েস্ট ইন্ডিজদের সাথে ২৮ ম্যাচের ৭টি তে জয়, ১৯টি তে হার ও ২টি ম্যাচ পরিত্যক্ত।

১১। শ্রীলঙ্কার সাথে ৪৪ ম্যাচের ৬টি তে জয়, ৩৬টি তে হার ও ২ ম্যাচ পরিত্যক্ত।
আইসিসির সহযোগী দেশগুলোর সাথে আমাদের জয় পরাজয়ের সংখ্যাঃ
১২। বার্মুডার সাথে ২ ম্যাচের ২টি তেই জয়।
১৩। কানাডার সাথে ২ ম্যাচের ১টি তে জয় ও ১টি তে হার।
১৪। হংকংয়ের সাথে ১ ম্যাচের ১টি তেই জয়।
১৫। কেনিয়ার সাথে ১৪ ম্যাচের ৮টি তে জয় ও ৬টি তে হার।
১৬। নেদারল্যান্ড এর সাথে ২ ম্যাচের ১টি তে জয় ও ১টি তে হার।
১৭। স্কটল্যান্ড এর সাথে ৪ ম্যাচের ৪টি তেই জয়।
১৮। আরব আমিরাতের সাথে ১ ম্যাচের ১টি তেই জয়।