বিচ্ছেদ কার্যকর হতে না হতেই মামলায় ফেঁসে যাচ্ছেন শাকিব-অপু!

বাংলা চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় তারকা জুটি শাকিব-অপু বিবাহ বিচ্ছেদ গত ১২ মার্চ অআনুষ্ঠানিকভাবে কার্যকার হয়েছে। ফলে গোপনে বিয়ে করলে প্রকাশ্যে বিচ্ছেদ হলো তাদের। আর এ বিচ্ছেদ কার্যকর হতে না হতেই মামলায় ফেসে যাচ্ছেন দুজনই।

উল্লেখ্য, ২০০৮ সালের ১৮ এপ্রিল গোপনে বিয়ে করেন বাংলাদেশি ছবির জনপ্রিয় জুটি শাকিব খান ও অপু বিশ্বাস। ২০১৬ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর জন্ম হয় তাদের সন্তান আব্রাম খান জয়। শাকিব-অপু দুজনেই সন্তানের জন্মের বিষয়টি গোপন রাখেন। ২০১৭ সালের ১০ এপ্রিলে একটি টিভি চ্যানেলের সরাসরি অনুষ্ঠানে এসে বিয়ে ও সন্তানের খবর ফাঁস করেন অপু বিশ্বাস। এ সময় তার সঙ্গে ছিল ছয় মাস বয়সী আব্রাম।

কেননা বিবাহ বিচ্ছেদের ফলে তাদের সাথে আর সম্পর্ক থাকছেনা। তাই আপাতত তাদর আর একসাথে কাজ করা হচ্ছেনা। অপু-সাকিব এক সাথে কাজ না করার কারণে বিপাকে পড়তে যাচ্ছেন মিডিয়া জগতের অনেক প্রযোজক ও পরিচালক। কারণ এটি থুবই সহজ, শাকিব আর অপুর বিচ্ছেদের ফলে অনেক অর্ধসমাপ্ত ছবিই আর করা সম্ভব হচ্ছে না বলে জানা গেছে। আর তাই ছবির প্রযোজকরা আদালতের দ্বারস্থ হওয়ার কথা ভাবছেন।

শাকিব ও অপুর ‘পাংকু জামাই’, ‘লাভ ২০১৪’, ‘মা’, ‘মাই ডার্লিং’ প্রভৃতি ছবির প্রায় ৭০ শতাংশ শুটিং শেষ করেও বাকি কাজ শেষ করা যাচ্ছে না তাদের এ বিচ্ছেদের কারণে। ফলে বড় অঙ্কের লোকসানের মুখে পড়তে যাচ্ছেন এসব ছবির প্রযোজকরা। আর এ কারণেই আদালতের দ্বারস্থ হওয়ার চিন্তা করছেন অনেকে।

‘মাই ডার্লিং’ ছবির প্রযোজক মোহাম্মদ হিমেল বলেন, ‘আমরা দীর্ঘদিন ধরেই অপেক্ষা করছি ছবিটি শেষ করার জন্য। ৭০ শতাংশ শুটিং শেষ করার পর হঠাৎ অপু বিশ্বাস হারিয়ে গেলেন, তারপর কিছুতেই উনার সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারিনি। আবার বছরখানেক পর ফিরে এলেন বাচ্চাসহ। তারপর দেখি, শাকিব খান আর অপু বিশ্বাস একে অপরের সঙ্গে কথাও বলেন না। কিন্তু আমাদের কী হবে? আমরা এই ছবির জন্য এরই মধ্যে প্রায় দুই কোটি টাকা খরচ করেছি, যদি ছবিটি শেষ করতে না পারি, তবে পুরো টাকাটাই লস হিসেবে গণ্য করতে হবে। এটা প্রযোজক হিসেবে আমরা মেনে নেব না, এরই মধ্যে আমরা মামলা করার প্রস্তুতি নিচ্ছি। আগামী দুদিনের মধ্যে আমরা ক্ষতিপূরণ চেয়ে দুজনের বিরুদ্ধে মামলা করব।’

‘মা’ ছবির পরিচালক কালাম কায়সার বলেন, ‘আমরা ছবির শুটিং শুরু করার কিছুদিন পরই দেখি অপু বিশ্বাস নিখোঁজ। তারপর তো আর শুটিং করতে পারিনি। এখন যা অবস্থা, তাতে এতটুকু বুঝতে পারছি, উনারা আর একসঙ্গে ক্যামেরার সামনে দাঁড়াবেন না। আমরা কাজ বন্ধ করে বসে আছি। আমার প্রযোজক এর পর থেকে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। তিনি আর ছবি বানাবেন না, এরই মধ্যে কয়েকজন প্রযোজক মিলে মামলা করার প্রস্তুতি নিচ্ছে।’

বাংলাদেশ পরিচালক সমিতির সভাপতি মুশফিকুর রহমান গুলজার বলেন, ‘আমি শুনেছি কয়েকজন প্রয়োজক শাকিব খান ও অপু বিশ্বাসের বিরুদ্ধে ক্ষতিপূরণ মামলা করবেন। আমি মনে করি, তারা তা করতেই পারেন। কারণ, একটি ছবির সঙ্গে একজন প্রযোজকের কোটি কোটি টাকা যুক্ত, পরিচালকের ক্যারিয়ার যুক্ত।’