বিছানাতে শাহিদেরই আধিপত্য বেশি, বললেন মীরা

যদিও চকোলেট বয় ইমেজ নিয়ে বলিউডে নিজের যাত্রা শুরু করেছিলেন, সময়ের সঙ্গে সঙ্গে নিজেকে পাল্টে ফেলতে কখনওই দ্বিধা করেননি শাহিদ কপূর। হয়তো সে কারণেই ‘যব উই মেট’ (২০০৭), ‘হায়দর’ (২০১৪), ‘উড়তা পঞ্জাব’(২০১৬)-এর মতো ছবিতে তাঁর অভিনীত ভিন্ন চরিত্রগুলিই মনে দাগ কেটেছে দর্শকদের।

বলিউডের বেশির ভাগ তারকার মতোই, বিভিন্ন সময়ে শাহিদ কপূরেরও নাম জড়িয়েছে তাঁর সহ-অভিনেত্রীদের সঙ্গে। যার মধ্যে বহুল চর্চিত সম্পর্ক ছিল করিনা কপূরের সঙ্গে।
কিন্তু, তাঁদের ব্রেক-আপের পরে করিনা কপূরই আগে সংসার পাতেন সইফ আলির সঙ্গে। ২০১৫ সালে, শহিদ কপূরের বিয়ে হয় মীরা রাজপুতের সঙ্গে। শোনা যায়, বাবা পঙ্কজ কপূরেরই পছন্দ করা পাত্রী ছিলেন দিল্লিবাসিনী মীরা।

বলিউডের সঙ্গে কোনও যোগসূত্রইও ছিল না মীরার। কিন্তু, শাহিদের সঙ্গে বিয়ের পরে, অনেক অনুষ্ঠানেই তাঁকে দেখা যায় স্বামীর সঙ্গে। টেলিভিশনের জনপ্রিয় টক-শো ‘কফি উইথ কর্ণ’-এও মীরাকে বেশ খোলামেলা কথা বলতে দেখা গিয়েছিল। যেমন, শাহিদের প্রাক্তনদের ব্যাপারে তাঁর মতামত, তাঁদের ঝগড়া হলে কীভাবে মিটমাট হয় ইত্যাদি।

নিজেদের বেশ কিছু ব্যক্তিগত কথাও অনেক সময়েই অকপটে বলেন মীরা। সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদন অনুযায়ী, সম্প্রতি এমনই এক চ্যাট-শোয়ে বেশ কিছু প্রশ্নের ‘বোল্ড’ উত্তর দিতে শোনা যায় মীরাকে। তাঁকে জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল, ঘনিষ্ট মুহূর্তে তাঁদের ‘ফেবারিট পজিশন’ কী। সাহসী মীরার চটজলদি জবাব ছিল, বিছানায় শাহিদ ‘কন্ট্রোল ফ্রিক’। সাদা বাংলায় যার মানে, প্রেমিকই নিয়ন্ত্রণ করেন সেই খেলা।

মীরার অকপট উত্তরে প্রশ্নকারীর অবস্থা যেমনই হোক না কেন, লজ্জায় মুখ লাল হয়ে গিয়েছিল তাঁর পাশে বসা শাহিদের।