‘‘ভালো তো চলে এসো শ্রীলঙ্কায়, এরপর যা হলো, সবই তো ইতিহাস’’

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান দলের সঙ্গে এখন শ্রীলঙ্কায় আছেন। শ্রীলঙ্কা থেকেই ফোন করেছিলেন টি-২০ অধিনায়ক সাকিব আল হাসানকে। উদ্দেশ্য চোটগ্রস্ত আঙুলের একটু খোঁজখবর নেওয়া।

সকিবকে জিজ্ঞেস করলেন, কেমন আছ? আঙুলের কী অবস্থা? বাংলাদেশের টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক ‘ভালো’ বলতেই বিসিবি সভাপতির কথা, ‘ভালো তো চলে এসো শ্রীলঙ্কায়।’

সভাপতির আহ্বান শুনে আর বসে থাকতে পারলেন না বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার, সোজা টিকিট কেটে শ্রীলঙ্কা। মাত্র এক দিনের অনুশীলন পুঁজি করে কলম্বোর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে লঙ্কানদের বিপক্ষে সাকিব খেললেন, এরপর যা যা হলো, সবই তো ইতিহাস।

ম্যাচ শেষের সংবাদ সম্মেলনে সাকিব, ‘পুরো ব্যাপারটাকে রোলার কোস্টার বলতে পারেন। থাইল্যান্ডে গেলাম, শ্রীলঙ্কায় এলাম, অস্ট্রেলিয়া গেলাম, দেশে ফিরে আবার শ্রীলঙ্কা। আকাশপথে অনেক ভ্রমণ হয়েছে। পাপন ভাই ফোন করেছিলেন। বললেন, তুমি চলে এসো। শুধু বোলিংটাও যদি করে দিতে পারো, অনেক ভালো হবে।’

সাকিবের চটপট উত্তর, ‘হ্যাঁ, আমি সেফ সাইডে থাকতে পারতাম। বলতে পারতাম, ম্যাচ ফিট না, আরও সময় লাগবে। দিন শেষে জেতা দলের অধিনায়ক হওয়াও তো গৌরবের বিষয়।’