মেসি-নেইমারদের মত প্রযুক্তি ব্যবহার করছে শ্রীলঙ্কা

শ্রীলঙ্কার ক্রিকেটারদের যদি মাঠে ভালোভাবে লক্ষ করে থাকেন তাহলে দেখবেন তাদের জার্সির পেছনে সবুজ ও নীল বাতি জ্বলজ্বল করছে।

প্রথমে হয়তো ঘাবড়ে যেতে পারেন। কিন্তু ঘাবড়ানোর কিছু নেই। থিসারা পেরেরা ও কুলশ সিলভাদের কাঁধে বা কোমড়ে যুক্ত করা হয়েছে জিপিএস প্রযুক্তি। মাঠে ক্রিকেটারদের ফিটনেস এবং ইনটেনসিটির মাত্রা পর্যবেক্ষণ করা হয় জিপিএসের মাধ্যমে।

এর মাধ্যমে ট্রেনাররা খুব কাছ থেকে খেলোয়াড়দের দেখতে পারেন এবং তাদের সব কার্যক্রম রেকর্ড রাখতে পারেন। পরবর্তী সময়ে এটি চাইলেই পর্যবেক্ষণ করা সম্ভব। শ্রীলঙ্কার ক্রিকেটারদের জন্য এটি বার্সেলোনা থেকে উড়িয়ে এনেছে তাদের হাই পাফরম্যান্স সেন্টার।

লিওনেল মেসি ও লুইস সুয়ারেজদের জন্য এ প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়। তাদের ফিটনেসের অবস্থা, বিশ্রাম, ইনজুরিতে পড়ার প্রবণতা, শারীরিক ধকল, শট নেওয়ার গতি এবং গোল করার ক্ষমতাসহ আরো অনেক কিছুর চুলচেড়া বিশ্লেষণ হয় এই জিপিএস প্রযুক্তির মাধ্যমে। শ্রীলঙ্কা দলের ফিল্ডিং কোচ নিক পোথাস এ প্রযুক্তিটি বার্সেলোনা থেকে নিয়ে আসেন লঙ্কান ক্রিকেটারদের জন্য।

প্রযুক্তিটি এরইমধ্যে ব্যবহার শুরু করে দিয়েছে লঙ্কান ক্রিকেট। এতে মাঠে এবং মাঠের বাইরে ক্রিকেটারদের কড়া নজরে রাখতে পারছে টিম ম্যানেজমেন্ট। ডাটা এমনভাবে তৈরি করা হয়েছে যে তা স্বয়ংক্রিয়ভাবে খেলোয়াড়দের প্রোফাইলে সংযুক্ত হয়ে যায়।

শ্রীলঙ্কা ক্রিকেটের হাই পারফরম্যান্স সেন্টারের প্রধান সাইমন উইলস জানিয়েছেন, দলের অভ্যন্তরীণ অনেক সিদ্ধান্ত এ জিপিএস প্রযুক্তির মাধ্যমে নেওয়া যাচ্ছে। তার ভাষ্য, ‘ডাটাগুলো আমাদেরকে সরাসরি অনেক আপডেট দিচ্ছে। সাপোর্টিং স্টাফ যারা আছে তাদেরকেও সাহায্য করছে। পাশাপাশি আমরা যে সিদ্ধান্ত নিচ্ছি সেগুলোরও প্রমাণ রাখতে পারছি।’