যে ভুলের জন্য জাতির কাছে ক্ষমা চাইলেন রুবেল

নিদাহাস ট্রফির ফাইনালে রুবেল হোসেনের সেই ১৮তম ওভার জাতির কাছে চরম জঘন্যই মনে হতে পারে দীর্ঘদিন। তবুও তিনি তো মানুষ। তার ভুল আর সামথ্য নিজে আর কতদূর পারে। ভাগ্য বলে তো কিছু আছে। খুব কাছে গিয়েও জয়ের দেখা পেলনা বাংলাদেশ। ১৬ কোটি মানুষের হৃদয়ে হয়তো কষ্টটা বুঝতে পেরে রুবেল আর স্থীর থাকতে পারলেন না রুবেল হোসেন।

বাংলাদেশ দলের সঙ্গে রুবেল হোসেন আছেন অনেকদিন ধরে। দলের উত্থানের অন্যতম একজন সাক্ষী তিনি। সেই সাক্ষীর ভূমিকায় থেকে সাঙ্গ হয়েছেন অনেক ভালো-খারাপ অনুভূতির। তার উল্লেখযোগ্য অনেকগুলোতে আবার জড়িয়ে আছে তার নাম। অনেক মহাকাব্যিক ম্যাচ জেতানোর কীর্তি যেমন আছে, তেমনি আছে কিছু ম্যাচ হারানোর বেদনাও।

তেমনি এক বেদনা আবারও ফিরে এলো রুবেল হোসেনের কাছে। রোববার নিদাহাস ট্রফির ফাইনালে ভারতের কাছে শেষ বলে হারা ম্যাচে বাংলাদেশের পরাজয়ের কারণ হিসেবে অনেকেই দায়ী করছেন রুবেল হোসেনকে!

নিজের প্রথম ৩ ওভারে মাত্র ১৩ রান দিয়েছিলেন রুবেল। যেখানে তার একার শিকারেই ছিল দুটি উইকেট। ২ ওভারে যখন ভারতের প্রয়োজন ৩৪ রান, তখন অধিনায়ক স্বাভাবিকভাবেই ভরসা রেখেছিলেন রুবেল হোসেনের বিশ্বস্ত হাতে। তবে ১৯তম ওভারেই কেবল রুবেল বিলিয়ে বসেন ২২ রান। তাতে অবশ্য রুবেলের যতটা দায়, তার চেয়েও বেশি কৃতিত্ব দীনেশ কার্তিকের মারমুখো ব্যাটিংয়ের।

সেই ক্ষতি বাংলাদেশ পুষিয়ে উঠতে পারেনি আর। শেষ ওভারে ১২ রান প্রয়োজন ছিল ভারতের, শেষ বলে ৫। সৌম্যর করা ওভারের শেষ বলটিকে ছক্কা বানিয়ে ভারতকে বিজয় উল্লাসে মাতোয়ারা করেন কার্তিক। আর বিমর্ষ হয়ে আরও একটি ফাইনাল হারার বিষাদে নীল হয় বাংলাদেশ।

এই হারের জন্য অনেকেই দোষারোপ করছেন রুবেল হোসেনের করা ১৯তম ওভারটিকে। যদিও আদতে দীনেশ কার্তিকের মারকুটে আচরণের সামনে তখন রুবেলের তেমন কিছু করারও ছিল না। তবুও ম্যাচ শেষে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকের মাধ্যমে সবার কাছে ক্ষমা চান পেসার রুবেল হোসেন।

তার অফিশিয়াল ফেসবুক পেইজ থেকে দেওয়া এক পোস্টে রুবেল বলেন, ‘ম্যাচ শেষ হওয়ার পর থেকেই খুব খারাপ লাগছে। সত্যি বলতে আমি কখনোই ভাবিনি আমার কারনে বাংলাদেশ দল জয়ের এত কাছে এসেও ম্যাচ থেকে এভাবে ছিটকে যাবে। সবার কাছে আমি ক্ষমাপ্রার্থী। আমাকে ক্ষমা করে দিবেন সবাই।’