স্মিথের পতদ্যাগ চান সাবেক গ্রেটরা

টিভি ফুটেজে যখন ধরা পড়ল হলুদ কাপড়ের মতো কিছু লুকানোর চেষ্টা করছিলেন ক্যামেরন ব্যানক্রফট, ঝড়ের আভাস মিলেছিল তখনই। সেই ঝড়টা এলো অবিশ্বাস্য দ্রুততায় এবং ভয়াবহ তীব্রতায়। কেপ টাউন টেস্টের তৃতীয় দিনের খেলা শেষে বল টেম্পারিংয়ের চেষ্টার দায় স্বীকার করে নিলেন অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথ ও ওপেনার ব্যানক্রফট।

এদিকে স্মিথকে অধিনায়কত্ব থেকে সরিয়ে দিতে দেশটির ক্রিকেট বোর্ডকে নির্দেশ দিয়েছে অস্ট্রিলিয়া সরকার। প্রধানমন্ত্রী ম্যালকম টার্নবুল ঘটনাটিকে ‘অত্যন্ত দুঃখজনক’ বলে মন্তব্য করেছেন। খবর ক্রিকইনফো’র।

টার্নবুল বলেন, ‘সকালে ঘুম থেকে উঠে এই ভয়াবহ সংবাদ পেতে হলো। বিশ্বাসই হচ্ছিলো না যে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট টিম প্রতারণায় জড়িত হয়েছে। যাইহোক আমাদের ক্রিকেটাররা রোল মডেল হিসেবে বিবেচিত এবং পরিচ্ছন্ন খেলা বলতে লোকজন এখানে ক্রিকেটকেই বুঝে। সবাই হতাশ হয়েছে।’

ক্ষেপেছেন সাবেক ক্রিকেট গ্রেটরাও। ফক্স স্পোর্টসে লেখা এক কলামে সাবেক অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক অ্যালেন বোর্ডার লিখেছেন, স্টিভে স্মিথ অধিনায়কত্ব হারালে তিনি খুশি হবেন। বোর্ডার লিখেছেন, ‘যদি আইসিসি এবং অস্ট্রেলিয়া বোর্ড স্মিথকে চতুর্থ টেস্টে খেলার অনুমতি দেয় তাহলে আমি খুশিই হবো। একই সাথে যদি তাকে অধিনায়কত্ব থেকে সরিয়ে দেয়া হয় তাহলে আমার ভাল লাগবে।’

আরেক সাবেক অজি অধিনায়ক অ্যাডাম গিলক্রিস্ট রীতিমতো ক্ষেপেছেন দলের কাণ্ডে। তিনিও মনে করেন অধিনায়ক হিসেবে স্মিথের চালিয়ে যাওয়া ঠিক হবে না। তার কথা, ‘আমি সত্যিই বিস্মিত, ব্যথিত, মর্মাহত। অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট এখন বিশ্বের দরবারে হাসির খোরাকে পরিণত হয়েছে।’

নিজ দলের অনুজদের বল টেম্পারিংয়ের বিষয় সাবেক এই কিংবদন্তী ওপেনার বলেন, ‘এই ধরনের কাজ স্পষ্টতই খেলার নিয়মের লঙ্ঘন।’

শেন ওয়ার্ন টুইট করে নিজের হতাশার কথা জানিয়েছেন। ‘নিউজে কেপ টাউনের ছবি দেখে আমি খুবই হতাশ।’

সাবেক অধিনায়ক মাইকেল ক্লার্ক টুইট করেছেন, ‌’হোয়াট দ্যা… আমি কি মাত্র ঘুম থেকে উঠলাম! দয়া করে কেউ আমাকে বলুন, এটা একটা খারাপ স্বপ্ন ছিল!’