হেলপার গেটে হাত দিয়ে বলে- ‘নামেন কেন, চলেন ঘুরে আসি’

রাজধানীতে ‘নিউ ভিশন’ বাসে কলেজছাত্রীকে হেনস্তার মাত্র এক সপ্তাহ পার না হতেই ঘটল একই ধরনের ঘটনা। গতকাল শুক্রবার প্রায় একইভাবে হেনস্তার শিকার হতে হলো আরেক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীকে। এসময় সঙ্গে ছিল তার বড় বোনও।

ঘটনার শিকার ছাত্রী তাঁর উদ্ধার পাওয়ার অভিজ্ঞতা জানিয়ে ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন। মাত্র ২৪ ঘণ্টায় পোস্টটি ভাইরালও হয়ে গেছে।

তিনি ফেসবুকে দেয়া পোস্টে লিখেছেন, আজকে (শুক্রবার) দুপুর ২:৩০টা। আমি আর আমার বোন রমজান বাসে উঠলাম কলাবাগান যাবো বলে। নরমালি তরঙ্গ প্লাস এ যাই। আজকে রমজানে উঠলাম কারণ নতুন চালু হয়েছে মৌচাক-ধানমন্ডি রুটে। আর বাস এর কন্ডাক্টর বলে আপা তরঙ্গ আসতে দেরি হবে, ওঠেন।

বাসে ওঠার পর থেকে বাস এর কন্ডাক্টর আর হেলপার হা করে আমাদের দিকে তাকিয়ে ছিলো। বাসওয়ালার সঙ্গে কী কী জানি আলাপ করতেছিলো। হঠাৎ এলিফেন্ট রোড সিগনাল এ যাওয়ার পর হেলপার এবং কন্ডাক্টর সবাইকে নামিয়ে দিচ্ছে। তারা বলে সামনের বাসে যান। সামনে আরেকটা রমজান বাস ছিল- সেটাতে। সবাইকে এক প্রকার জোর করে নামিয়ে দিচ্ছিল। শুধু আমাদেরকে কিছুই বলে না। হঠাত আমার বোন আর আমি দেখলাম যে বাস খালি হয়ে গেসে শুধু আমরা দুই জন ছাড়া। আর দুই জন লোক আছে। উনারা ঝগড়া করছেন বাসওয়ালাদের সঙ্গে বলে টাকা দিছি যাবি না কেন?

বলে- না, যাব না, নামেন আপনারা।

উনারা নামার পর আমি আর আমার বোন যখন নামতে যাব, তখন বলে আপনারা নাইমেন না আমরা সিটি কলেজ যাব তো।যখন নামতে গেলাম হেলপার গেটে হাত দিয়ে বলে নামেন কেন চলেন একটু ঘুরে আসি। আমি একটা ধাক্কা দিয়ে বলি কুত্তার বাচ্চা তোরে মাইরা ফেলমু বলে- আমার বোনকে একটা টান দিয়ে নেমে বাস এর পিছে দৌঁড় দিছি। অমনি বাস জোরে টান দিয়ে চলে গেলো।

বিষয়টি নিয়ে যোগাযোগ করা হলে ওই শিক্ষার্থী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, প্রতিদিন এ ধরনের কাহিনী ফেসবুকে-পেপারে দেখি। আজকে নিজে ফেস করলাম এই ভয়ংকর পরিস্থিতি। এই শহরে রাতে দিনে কোথাও মেয়েরা সেফ না। কোথায় যাবে মেয়েরা?

থানায় অভিযোগ করেছেন কিনা? জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেন, গতকাল রাতে রাজধানীর নিউ মার্কেট থানায় এ ব্যাপারে একটি মামলা করা হয়েছে। ওই ঘটনায় পুলিশ রমজান বাসের ওই হেলপারসহ তিনজনকে আটক করেছে।

বিষয়টি নিয়ে নিউ মার্কেট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আতিকুর রহমান জানান, গতকাল রাতে রমজান পরিবহনের ওই হেলপার ও কনডাক্টরদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।মামলার পর অভিযুক্তদের আটক করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, এর আগে গত ১৭ মার্চ রাজধানীর ফার্মগেট এলাকায় একই রকম হেনস্তার শিকার হন ইডেন কলেজের এক শিক্ষার্থী। ঘটনার শিকার ছাত্রী অভিজ্ঞতা জানিয়ে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেন। স্ট্যাটাসটি ভাইরাল হয়ে যায়। একপর্যায়ে অভিযোগে থাকা ব্যক্তিরা শনাক্ত হন। অভিযোগ ওঠা ব্যক্তিরা দায় স্বীকার করেছেন।- আরটিভি অনলাইন