হোটেল থেকে ৩৫ নারী পুরুষ আটক

যোগী আদিত্যনাথের রাজ্যে বিভিন্ন হোটেলে গোপনে দেদার চলছে দেহ ব্যবসা। একাধিকবার পুলিশের জালে ধরা পড়েছে অভিযুক্তরা। তেমনই মিরাটের কয়েকটি হোটেলে তল্লাশি চালিয়ে মঙ্গলবার পুরুষ ও মহিলা-সহ ৩৫ জনকে গ্রেপ্তার করল পুলিশ।

ঘটনা উত্তরপ্রেদেশের মিরাটের। সদর বাজার থানা এলাকার ছ’টিরও বেশি হোটেলে মঙ্গলবার তল্লাশি চালায় পুলিশ। তখনই দেহ ব্যবসার পর্দা ফাঁস হয়। পুলিশ তল্লাশি শুরু করেছে খবর পেয়েই মধুচক্রের সঙ্গে যুক্ত পুরুষ ও মহিলারা পালানোর চেষ্টা করেন। আবার অনেকে লুকিয়ে পড়েন হোটেলের ভিতরই। কিন্তু পুলিশের পাতা ফাঁদ থেকে পালানো শেষমেশ সম্ভব হয়নি। মোট ৩৫ জনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। পুলিশের বাসে অভিযুক্তদের থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। পুলিশ সূত্রে খবর, ওই এলাকার একাধিক হোটেলে বেশ কয়েক বছর ধরেই আইনের চোখে ধুলো দিয়ে মধুচক্রের রমরমা চলছে। শুধু তাই নয়, এর আগে অনেক পুলিশ কর্মীরাও এতে মদত দিয়েছেন। ফলে গোটা বিষয়টি ছিল অন্ধকারেই। তবে এলাকাবাসীদের অভিযোগে নড়েচড়ে বসে পুলিশ।

স্থানীয়দের অভিযোগ, সন্ধে হতেই হোটেলগুলিতে যুবক-যুবতীদের ভিড় বাড়ত। যাদের মধ্যে বেশিরভাগই থাকত মদ্যপ অবস্থায়। হোটেলের ভিতর থেকে নাচ-গানের শব্দ ভেসে আসত। এমন পরিবেশে বসবাস করাই রীতিমতো দুঃসহ হয়ে উঠেছিল। গোপন সূত্রে খবর পেয়ে পুলিশ তল্লাশি চালাতেই মধুচক্রের পর্দা ফাঁস হয়। ধৃতদের জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ।

উল্লেখ্য সোমবারই মধুচক্রে জড়িত অভিযোগে গুরগাঁওয়ের একটি মল থেকে ন’জনকে গ্রেপ্তার করেছিল পুলিশ। গুরগাঁও পুলিশ পিআরও রবিন্দর কুমার জানিয়েছিলেন, ওমেক্স শপিং মলের ভিতর স্পা-এর আড়ালে রমরমিয়ে দেহ ব্যবসা চলছিল। সেই ওয়েস্টার স্পা সেন্টারে ক্রেতা সেজে হাজির হয়েছিলেন পুলিশ আধিকারিকরা। আর তখনই গোটা ঘটনার পর্দা ফাঁস হয়। ছ’জন মহিলা-সহ মোট ন’জনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।