গোদাগাড়ীতে পৃথক সড়ক দূর্ঘটনায় চাঁপাইনবাবগঞ্জ মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালকের স্ত্রী, মেয়েসহ পাঁচজন নিহত এবং আহত ৩০

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধিঃ রাজশাহীর গোদাগাড়ীতে ছয়টি সড়ক দূর্ঘটনায় চাঁপাইনবাবগঞ্জ মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক আলমঙ্গীর হোসেনের স্ত্রী খাদিজাতুল কোবরা কেয়া ও মেয়ে রাইসাসহ ৫ জন নিহত হয়েছ। এ সব ঘটনায় আহত হয়েছে ৩০ জন।
রবিবার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে মালবাহী কার্গো ট্রাকের ঘুমন্ত চালকের কারণে এক ব্যবসায়ী নিহত হয়।

এদিকে রেলগেট এলাকায় চাঁপাইনবাবগঞ্জগামী একটি ঘাতক ট্রাক ঘুমন্ত অবস্থায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে মাংসের দোকানে ঢুকে গেলে ঘটনা স্থলে জসিমের মৃত্যু ঘটে। নিহত জসিম উপজেলার রেলগেট কসাইপাড়া গ্রামের তসলিম উদ্দীনের ছেলে। আহত হয় আরও দুইজন। আহতদের ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা উদ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করেন। আহতরা হলেন একই গ্রামের মহিউদ্দীনের ছেলে বাবু (৩০) ও আলাউদ্দীনের ছেলে সেলিম (৩২)।

অন্যদিকে সকাল ১০টার দিকে ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হয়ে দুজন মোটর সাইকেল আরোহী নিহত হয়। উপজেলার রাজাবাড়ী ছয়ঘাটি নামক স্থানে চাঁপাইনবাবগঞ্জ গামীট্রাক ও বিপরীত দিক থেকে আসা মোটর সাইকেল মুখোমুখী সংঘর্ষে ঘটনা স্থলেই ঐ দুই জনের মৃত্যু হয়। নিহতরা হলেন উপজেলার ফরাদপুর গ্রামের এমাজউদ্দীনের ছেলে এমদাদ হোসেন চান্দু (৫০) একই গ্রামের সানারুল ইসলামের মেয়ে খুসবু তাজনীম (১৪) দশম শ্রেনীর ছাত্রী ছিল।

এদিকে বেলা ১১ টার দিকে উপজেলার কাদিপুর নামক স্থানে দুটি ট্রাকে মুখোমুখী সংর্ঘষের সময় চলন্ত একটি অটো রিক্সাকে ধাক্কা দিলে ঘটনা স্থলে শিশুসহ ৪ জন আহত হয়।এবং বেলা ১২ টার দিকে রাজা বাড়ীতে রাজশাহীগামী যাত্রীবাহী বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদেপড়ে ২০ জন আহত হয়।

এ দিকে বিকেল সাড়ে ৪ টার দিকে রেলগেট বাইপাস নামক স্থানে রাজশাহীগামী ট্রাকের সাথে চাঁপাইগামী মাইক্রোবাসের সাথে মুখোমুখী সংর্ঘষে মা ও মেয়ে দুজন নিহত হয়। নিহতরা হলেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক আলমঙ্গীর হোসেনের স্ত্রী খাদিজাতুল কোবরা ও মেয়ে রাইসা। এতে আহত হয় ৪ জন। আহতদের উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এ ব্যাপারে গোদাগাড়ী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ জাহাঙ্গীর আলম নিশ্চিত করে বলেন,পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় পাঁচ জন নিহত হয়েছে।আহত হয়েছে অন্তত ৩০ জন। আর এই সড়ক দূর্ঘটনা গুলো রাজশাহী-চাঁপাইনবাবগঞ্জ মহাসড়কেই ঘটে। এসব ঘটনায় ঘাতকট্রাক গুলোকে জব্দ করা হয়েছে। এছাড়া পরিবারের পক্ষ থেকে কোন অভিযোগ পাওয়া গেলে মামলা দায়ের করা হবে বলে জানান ওসি।