ঠাকুরগাঁওয়ে রাস্তা পাকা করণ কাজে অনিয়মের অভিযোগ

মজিবর রহমান শেখ ঠাকুরগাঁও জেলা প্রতিনিধিঃ ঠাকুরগাঁও জেলার পীরগঞ্জে নিয়ম ভঙ্গ করে রাস্তা পাকা করণ কাজ করার অভিযোগ উঠেছে। বিধি মোতাবেক কাজ করার দাবীতে শনিবার সকালে এলাকাবাসী কাজ বন্ধ করে দিলেও কিছুক্ষন পর আবারো কাজ শুরু করে ঠিকারের লোকজন। উপজেলা প্রকৌশলী বলছেন, নিয়ম মেনে কাজ করার জন্য নির্দেশ দিলেও মানছেন না প্রভাবশালী ঠিকাদার। তবে অভিযোগ ঠিক নয় বলে দাবী ঠিকাদারের।

এলাকাবাসী জানায়, পীরগঞ্জ উপজেলার লোহাগাড়া বাজার থেকে খনগাও ইউনিয়ন পরিষদ পর্যন্ত প্রায় ১ কি: মি: রাস্তা পাকা করণ কাজ চলছে। প্রায় পৌনে ১ কোটি টাকার এ কাজের এরই মধ্যে মাটি কেটে বস্ককাটিং এর কাজ শেষ হয়েছে। এখন চলছে বেইজের কাজ। নিয়ম মোতাবেক বেইজে ৮ ইঞ্চি বালু দিয়ে রোলার করার পর ৬ ইঞ্চি খোয়া ফেলে আবারো রোলার করা নিয়ম থাকলেও ঠিকাদারের লোকজন মাটি দিচ্ছে এবং কোন প্রকার রোলার ছাড়াই বড় বড় সাইজের খোয়া ফেলছে।

এতে এলাকাবাসী বাধা দিলে কর্ণপাত করছে না ঠিকাদারের লোজজন। বিষয়টি উপজেলা প্রকৌশলীকে জানানো হলে তিনি বিধি মোতাবেক কাজ করর জন্য ঠিকাদারকে নির্দেশ দেন। তারপরও বিধি মোতাবেক কাজ করা হচ্ছে না। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে শনিবার সকালে কাজ বন্ধ করে দেয় এলাকাবাসী। উপজেলা প্রকৌশলীও কাজ বন্ধ রাখার নির্দেশ দেন। কিন্তু কিছুক্ষন বন্ধ থাকার পর আবারো তাদের মত করে কাজ শুরু করেন প্রভাবশালী ঠিকাদারের লোকজন। এতে হতাশ হয়েছেন স্থানীয়রা।

ভোমরাদহ এলাকার বাসিন্দা জেলা পরিষদ সদস্য আশিরউদ্দীন জানান, অত্যন্ত খরাপ ভাবে কাজ করা হচ্ছে। কাজটা বন্ধ করার জন্য আমিও বলেছি। তারপরও কাজ হচ্ছে কিভাবে। এটা খতিয়ে দেখা দরকার। তাছাড়া কাজের বিবরণী সাইন বোর্ড দেওয়ার কথা থাকলেও এখানে দেওয়া হয়নি। সব কিছু যেন গোপন করা হচ্ছে। লোহাগাড়া বাজারের দোকানদার সুফিয়ান, বিশ্বনাথ বিশু, হিনু শীল সহ অনেকে জানান, মাটি দিয়ে দায় সাড়া ভাবে কাজ করা হচ্ছে। আমরা এর প্রতিবাদ করেছি। কিন্তু কাজ হচ্ছে না।

খোজ নিয়ে জানা যায়, বিপ্লব নামে রানীশংকৈল উপজেলার এক প্রভাবশালী ঠিকাদার কাজটি করছেন। তার কাছে এলাকাবাসী ও উপজেলা প্রকৌশলীর দপ্তর কিছুই না। উপজেলা প্রকৌশলী ইসমাইল হোসেন বলেন, নির্বাহী প্রকৗশলীর দপ্তর থেকে কাজটির টেন্ডার হয়েছে। আমরা সুপার ভিশন করছি। সব কিছু ওখানেই। এলাকার লোকজনের অভিযোগ পেয়ে নিয়মমত কাজ করার জন্য বলেছি।

ঠিকাদারের লোকজন মানছে না। পরে বাধ্য হয়েই কাজ বন্ধ রাখতে বলেছি। এখন জানি না কি অবস্থা। অভিযোগ অন্বীকার করে ঠিকাদার বিপ্লব বলেন, নিয়ম মত কাজ করা হচ্ছে। এলাকার কিছু লোক অহেতুক ঝামেলা করছে। তাছাড়া কাজ করলে তো কিছু অভিযোগ থাকবেই।