নবীগঞ্জ শহরের প্রধান সড়কে যত্রতত্র বাস ও সিএনজি স্ট্যান্ড যানজটে অতিষ্ট পৌরবাসী

মিজানুর রহমান সোহেল, হবিগঞ্জ: নবীগঞ্জ পৌর শহরে পানি নিস্কাশন ও ময়লা আবর্জনা পরিস্কারের সুষ্টু ব্যবস্থা না থাকায় অতি বৃষ্টির ফলে জমে থাকা আবর্জনার স্তুপ পচেঁ দুর্ঘন্ধের সৃষ্টি হয়। শহরের মধ্যে পানি নিষ্কাশনের কোনো সুষ্টু ব্যবস্থা নেই। যে সব ড্রেন নির্মান করা হয়েছে তা পানি নিস্কাশনের জন্য যথেষ্ট নয়। আর শহরের ভিতরের মুল সড়কে যত্রতত্র বাস ও সিএনজি দাড় করিয়ে যাত্রী উঠানামা করার ফলে যান জট লেগেই আছে। নির্ধারিত কাচামালের দোকানের জন্য ব্যবস্থা থাকলেও তারা সড়কের উপর দোকান পেতে ব্যবসা করছেন।

প্রশাসনের লোকজন দেখেও না দেখার ভান করছেন। পানি নিস্কাশনের দুটি ড্রেন থাকলেও ড্রেন গুলোতে ময়লা আবর্জনায় ভরপুর হয়ে পানি নিষ্কাশনে বাধার সৃষ্টি করেছে। সামান্য বৃষ্টি হলেই পুরো শহরের মধ্যে পানি আর কাদা জমে যায়। ফলে শহরবাসীর স্বাভাবিক চলাচল ব্যাহত হয়। ময়লা-আবর্জনা ফেলার কোনো স্থান নেই। সব ময়লা আবর্জনা ফেলা হয় থানার ডাকবাংলোর সামনের খালে ও সদর হাসপাতাল গেইটের সামনের খাল সহ যত্রতত্র স্থানে। ফলে এসব জন গুরুত্বপূর্ন স্থানে ময়লা ফেলায় দুরগন্ধে জন সাধারন নাকে হাত দিয়ে চলাচল করেন।

নবীগঞ্জবাসীর নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কেনাবেচার অন্যতম স্থান হচ্ছে শহরের মধ্য বাজার গোল্ডেন প্লাজার পিছনে। যা পৌর শহরের প্রাণ কেন্দ্র বলা হয়ে থাকে। সেখানে আবর্জনায় রাস্তায় চলাচল বন্ধ হওয়ার উপক্রম। শহরের নতুন বাজার আব্দুল মতিন চৌধুরী স্কোয়ার, ওসমানী সড়ক, জে-কে স্কুল রোডের উপর কাচাঁমালের হাট বসে। ফলে রিক্সা নিয়ে চলাচলে সমস্যা পোহাতে হয় সাধারন জনগনকে। নতুন বাজার এলাকায় ওয়ান বাই রোড থাকলেও কোন যানবাহনের ড্রাইভার তা পালন করেন না। পৌর শহরে নেই কোনো গন শৌচাগার। পৌর শহরের কাচামাল হাটের নির্মান কাজ শেষ হলেও সে কাচামাল হাট ব্যবসায়ীরা ব্যবহার করেন না।

হাট বাজারে ২ দিন শুক্রবার ও শরিবার নবীগঞ্জ শহরের মধ্যে যত্রতত্র বসে দোকান-পাট। ফলে সাধারন মানুষদের চলাচলে মারাতœক সমস্যার সৃষ্টি হয়। নবীগঞ্জ থেকে হবিগঞ্জ গামী বাস শহরের নতুন বাজার আব্দুল মতিন চৌধুরী স্কোয়ার ট্রাফিক পয়েন্টে রাস্তার উপর দাড়িয়ে যাত্রী উঠা-নামা করায় ফলে সারাক্ষন লেগে থাকে তীব্র যানজট। নবীগঞ্জ বাজার থেকে সরকার প্রতি বছর লাখ-লাখ টাকার রাজস্ব ফেলেও দৈন্য দশার হয়না কোনো সমাধান। শহরের নতুন বাজার এলাকায় অপরিকল্পিত ভাবে গড়ে উঠেছে কাচামালের বাজার।

ফলে সড়কের পার্শ্বে কোনো জায়গা না থাকায় গাড়িগুলো সড়কের উপর দাড়িয়ে যাত্রী উঠা নামার কারনে লেগে থাকে যানজট। নবীগঞ্জ পৌর শহরের সালামত পুর নতুন বাস ষ্টেশন নির্মান হলেও ঐ বাস ষ্টেশন নামে আছে কাজে নেই। কাচামাল ব্যবসায়ী মালিক মিয়া জানান আমাদের জন্য একটি নির্দিষ্ট স্থান করা হলে আমরা চলে গেলে সেখানে সারদিন বসে ব্যবসা করতে পারবো। আমরা স্থায়ী জায়গায় যেতে চাই না। ব্যবসায়ী মুশাহিদ আলী বলেন বাজারের যান সমস্যার সমাধান সহ চাই সার্বিক সমস্যার উন্নয়ন। যানজটে আটকে পড়া আজির চৌধুরী নামে এক সিএনজি যাত্রী জানান, নেতাদের ভোট হারানোর ভয়ে যানজট ও অবৈধ স্ট্যান্ড উচ্ছেদে তারা কোনো ধরণের উদ্যোগী ও ভূমিকা রাখছেন না।

এ ব্যাপারে পৌর মেয়র ছাবির আহমদ চৌধুরী বলেন, নবীগঞ্জ শহরের যানজট নিরসনে বাস ষ্টেশন, কাচা বাজার, ড্রেন নির্মান করা হয়েছে এবং অচিরেই এর স্থায়ী সমাধান করার চেষ্টা চলছে। নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তৌহিদ বিন হাসান বলেন যানজট নিরসনের জন্য ভ্রাম্যমান ব্যবসায়ীদের অভিযান চালিয়ে তোলা হয়েছে। আর কেউ যত্রতত্র বাস তামিয়ে যাত্রী উঠানামা করা ঠিক নয়। যানজট নিরসনের জন্য ভ্রাম্যমান অভিযান অব্যাহত থাকবে।