কর্ণফুলীতে বিদ্যালয়ে নতুন ভবন উদ্বোধন করলেন ভূমিপ্রতিমন্ত্রী জাবেদ

জে.জাহেদ, চট্টগ্রাম ব্যুরো: চট্টগ্রাম ১৩ আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য ভূমিপ্রতিমন্ত্রী আলহাজ্ব সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ এমপি বলেন, আপনারা কর্ণফুলী উপজেলা পেয়েছেন, আগামী ৫ বছরে সেই উপজেলাকে আমি উন্নয়নে বদলে দেবো। জননেত্রী শেখ হাসিনা সরকারকে আগামীতে আপনারা নৌকায় ভোট দিয়ে সহযোগিতা করুন।

খোয়াজনগর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিশুদের উদ্দ্যেশে ভূমিপ্রতিমন্ত্রী জাবেদ আরো বলেন, তোমরাই আগামীতে জাতির ভবিষ্যত, তোমাদের মাঝে গড়ে ওঠবে ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার আর বড় বড় নেতা। প্রত্যেকের জীবনে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সময়টি পার করে আসতে হয়। আমরাও সে সময়টা পার করে এসেছি। কর্ণফুলী উপজেলার চরপাথরঘাটা ইউনিয়নের খোয়াজনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও হাজী আলিম উদ্দিন ক্যাডেট স্কুল এন্ড কলেজের নতুন দ্বিতল ভবন উদ্বোধন ও অভিভাবক সমাবেশে সকাল সাড়ে ১১টায় তিনি প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

ভূমিপ্রতিমন্ত্রী আলহাজ্ব সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নতুন ভবন উদ্বোধন শেষে পার্শ্ববর্তী হাজী আলিম উদ্দিন হাই স্কুলের নতুন ভবন উদ্বোধন করেন। বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও প্রতিষ্ঠাতা ইঞ্জিনিয়ার ইসলাম আহমেদ এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা ছিলেন দক্ষিণ জেলা আ’লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক, কর্ণফুলী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব ফারুক চৌধুরী।
প্রধান বক্তার ভাষণে তিনি বলেন, ‘চরপাথরঘাটা ইউনিয়নের সবচেয়ে প্রয়োজনীয় সড়ক হল আইকেসি সড়ক। যা অতিদ্রুত কাজ ধরা হবে। স্কুলে আসা যাওয়া করতে শিশুদের আর কষ্ট করতে হবেনা। স্কুলের সভাপতির সার্বিক চেষ্ঠায় তা কার্যকর হচ্ছে বলে মন্তব্য করেন তিনি।’

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে কর্ণফুলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দ শামসুল তাবরীজ বলেন, বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্নে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিয়ে ছিলেন শিক্ষাকে। যার ধারাবাহিকতায় বর্তমান সরকার বছরের প্রথম দিনে কোমলমতি শিশুদের মাঝে বিনামূল্যে নতুন বই উপহার দিচ্ছেন। তিনি আরো বলেন, বর্তমান সরকার যেভাবে দেশকে এগিয়ে নিচ্ছেন তাতে আমরা ২০৪১ সালে উন্নত রাষ্ট্রে পরিণত হবো। তার সাথে আজকের শিশুদের ও উন্নত হতে হবে। অভিভাবকদের প্রতি তিনি বলেন, শিশুদের প্রতি নজর রাখতে, মাদক কে না বলতে, বাল্য বিবাহ প্রতিরোধ করতে, রাস্তায় ইভটিজিং বন্ধে পদক্ষেপ নিতে, প্রয়োজনে প্রশাসনের সহযোগিতা নিতে।

এতে আরো উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা আ.লীগের সভাপতি সৈয়দ জামাল আহমেদ, ফোর এইচ গ্রুপের পরিচালক দেলোয়ার হাসান জেকি, উপজেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক হায়দার আলী রনি, ঢাকা শিক্ষা অধিদপ্তরের সুপারিটেনডেন্ট পরিদর্শন ও নিরীক্ষা কর্মকর্তা মোঃ কুদরত উল্লাহ, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান দিদারুল ইসলাম চৌধুরী, উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোহাম্মদ মোতাহার বিল্লাহ, সহকারি শিক্ষা অফিসার দ্বিজেন ধর। অনুষ্ঠান পরিচালনায় ছিলেন বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষিকা প্রেমানন্দ মল্লিক ও স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিদ্যালয়ের আরেক সহকারি শিক্ষিকা সংগীতা দে।

জানা গেছে, উপজেলার ঐতিহ্যবাহী প্রাচীন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোয়াজনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি ১৯৩০ সালে স্থাপিত হয়ে ১৯৭৩ সালে সরকারিকরণ হয়। যেখানে বর্তমানে ১২জন শিক্ষক রয়েছেন। শিক্ষকেরা প্রতিমমন্ত্রীর কাছে স্কুলে একটি খেলার মাঠ ও শহীদ মিনার তৈরীর দাবি রাখেন। যা তিনি আশস্ত করেন।

এতে প্রধান শিক্ষক সামিরা পারভিন, সহকারি শিক্ষিকা শেগুপ্তা নাসরীন, তহমিনা বেগম, শ্যামলি সেন, আনোয়ারা খানম ছিদ্দিকা, রোকসানা ফেরদৌসি, সুমি দত্ত, শান্তা দত্ত ও নিলুফা আকতার চৌধুী সহ দুই বিদ্যালয়ের শত শত অভিভাবক ও ছাত্রছাত্রীরা উপস্থিত ছিলেন। মন্ত্রীর আগমণে এসব বিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীরা জাতীয় সংগীত পরিবেশন, বঙ্গবন্ধুর ভাষণ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে নাচগান প্রদর্শন করে উপভোগ করেন।