সকল শ্রেণির সরকারি চাকরিতে ৫% আদিবাসী কোটা পুনর্বাহালের দাবিতে গাইবান্ধায় মানববন্ধন

গাইবান্ধা প্রতিনিধি: সকল শ্রেণির সরকারি চাকরিতে ৫% আদিবাসী কোটা পুনর্বাহালের দাবিতে গাইবান্ধায় মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়েছে। গতকাল রোববার সাহেবগঞ্জ-বাগদাফার্ম ভূমি উদ্ধার সংগ্রাম কমিটি, আদিবাসী-বাঙালি সংহতি পরিষদ, জাতীয় আদিবাসী পরিষদ, আদিবাসী ইউনিয়ন ও জনউদ্যোগ এর আয়োজনে জেলা শহরের ১নং রেলগেট সংলগ্ন আসাদুজ্জামান মার্কেটের সামনে এ কর্মসূচি পালিত হয়।

সাহেবগঞ্জ-বাগদাফার্ম ভূমি উদ্ধার কমিটির সভাপতি ফিলিমন বাস্কের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন গাইবান্ধা কমিউনিস্ট পার্টির সাবেক সভাপতি ওয়াজিউর রহমান রাফেল, জেলা জেএসডি’র সভাপতি লাসেন খান রিন্টু, অবলম্বনের নির্বাহী পরিচালক ও জনউদ্যোগের সদস্য সচিব প্রবীর চক্রবর্তী, জেলা ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক ওয়ারেছ, আদিবাসী পারাগানা পরিষদের নেতা নরেন বাস্কে, ভূমি উদ্ধার সংগ্রাম কমিটির নেতা রেজাউল মাষ্টার, আদিবাসী যুব নেতা প্রিসিলা মুরমু, আদিবাসী ছাত্র নেতা বিট্রিশ সরেন, বুদরাই টুটু, আন্দ্রিয়াস মুরমু, জগন্থাথ সরেন প্রমুখ।

বক্তরা বলেন, সমতলে ও পাহাড়ে প্রায় ৪০টির বেশী আদিবাসী জাতিগোষ্ঠি রয়েছে। এই জাতিগোষ্ঠির শতকরা ৯০ ভাগ মানুষের প্রধান পেশা কৃষি/দিনমজুর। এখন তারা বিভিন্ন ভাবে তাদের জমাজমি হারিয়ে সর্বশান্ত ও প্রান্তিক অবস্থায় রয়েছে। ভূমি জবর দখল, মিথ্যা মামলার কারণে আদিবাসীরা তাদের আবাদি জমি হারিয়েছে। তারা এখন অন্যের জমিতে শ্রম বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করে। কৃষি শ্রম বিক্রি করতে এসেও তারা ৪-৫ মাসের বেশী তারা শ্রম বিক্রি করতে পারে না।

ফলে তাদের দৈন্যদশা লাঘব করা সহ জীবন যাত্রার মান উন্নয়ন করা দূর্বিসহ হয়ে উঠেছে। সেই সাথে সামাজিক বৈষম্য মর্যাদাহীনতা, নিরাপত্তাহীনতা রাষ্ট্রীয় পরিসেবা না পাওয়া ইত্যাদি এই জনগোষ্ঠির উন্নয়নে বাধা সৃষ্টি করছে। অথচ বাংলাদেশের সংবিধানে জাতি, ধর্ম, বর্ণ গোত্রভেদে নাগরিকের প্রতিবৈষম্য না করার অঙ্গীকার করা হয়েছে এবং পিছিয়ে পড়া জনগোষ্টির জন্য বিশেষ উদ্যোগ গ্রহণের কথাও বলা হয়েছে। এতে করে দেশে আদিবাসী জনগোষ্ঠী যে ভাবে উন্নয়ন কর্মকান্ডে অবদান রাখতে পারত সেখানে তাদের বিকাশ সামাজিক গতিশীলতায়, সরকারি পরিসেবাতে অভিগম্যতায় সর্বোপরি উন্নয়নের সম্পৃক্ত হতে বাধা প্রাপ্ত হচ্ছে।

এরই মধ্যে সরকারি চাকরিতে আদিবাসীদের যে কোটা সংরক্ষণ করা হতো তা তুলে দেয়াতে আদিবাসীরা আরো প্রান্তিক অবস্থানে নিমর্জ্জিত হবে। বক্তারা আরো বলেন, অবিলম্বে সরকারি চাকরিতে আদিবাসীদের জন্য ৫% কোটা পুনর্বাহাল, উপজেলায় আদিবাসী ছাত্র/ছাত্রীদের জন্য পৃথক আবাসিক হোষ্টেল প্রতিষ্ঠা, উপজেলা পর্যায়ে আদিবাসীদের সাংস্কৃতিক একাডেমিক ভবন প্রতিষ্ঠা, আদিবাসী ছাত্র/ছাত্রীদের জন্য উপবৃত্তি সাধারণের চেয়ে দ্বিগুন বরাদ্দ, আদিবাসীদের মাতৃভাষায় প্রাথমিক শিক্ষার ব্যবস্থা করার জোর দাবী জানান।