স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর হাতে ৯৪টি বন্দুক ও প্রায় ৮ হাজার রাউন্ড গুলি জমা দিয়ে দস্যুর আত্মসমর্পণ

মুহম্মদ তাহজীবুল আনাম, কক্সবাজারঃ উপকূলীয় ৬ দস্যু বাহিনীর ৪৩ জন সদস্য। শনিবার কক্সবাজারের মহেশখালীতে র‌্যাবের আয়োজনে অনুষ্ঠিত হয় আলোচিত এ আত্মসমর্পণ অনুষ্ঠান। সূত্র জানায়, কক্সবাজারের উপকূলীয় মহেশখালী-কুতুবদিয়া দ্বীপসহ সমগ্র উপকূলীয় এলাকায় বর্তমানে একাধিক সন্ত্রাসী বাহিনী সক্রিয় রয়েছে। একাধিক বাহিনীর শত শত সদস্য সমুদ্র উপকূলীয় পাহাড়ী এলাকায় ত্রাস চালিয়ে আসছিল।

সর্বশেষ গত কয়েকদিন আগেও মহেশখালীর সোনাদিয়াসহ আশপাশের এলাকায় একাধিক ট্রলার দস্যুতার শিকার হয়। একই ভাবে উপকূলে সন্ত্রাসী গ্রুপগুলো ধারাবাহিকভাবে সন্ত্রাস করে আসছিল। তালিকাভূক্ত এসব সন্ত্রাসী তাদের অস্ত্র ও গোলাবারুদ জমা দিয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসার প্রত্যয় জানিয়েছেন। এমন পটভূমিতে র‌্যাবের উদ্যোগে বড় আয়োজনের মাধ্যমে এ আত্মসমর্পণ অনুষ্ঠান সম্পন্ন হচ্ছে।

এদিকে মহেশখালী-কুতুবদিয়া এলাকার এসব সন্ত্রাসী আইনের আওতায় চলে আসার ঘটনায় খুশি উপকূলীয় এলাকার মানুষ। সর্বশেষ তথ্যে জানা গেছে, উপকূলীয় এলাকার আলোচিত সন্ত্রাসী গ্রুপ কালাবদা বাহিনী, জালাল বাহিনী, আনজু বাহিনী, রমিজ বাহিনী, আলা উদ্দিন বাহিনী ও আয়ুব বাহিনীর ৪৩ জন সদস্য আধুনিক এসএমজিসহ ৯৪ টি অস্ত্র ও ৭ হাজার ৬৩৭ রাউন্ড গুলিসহ আত্মসমর্পণ করেন।

বেলা সাড়ে ১১ টায় শুরু হয়ে এ আত্মসমর্পণ অনুষ্ঠান বেলা ১২টা ৪০ মিনিটে এ রির্পোট লেখা পর্যন্ত চলছে। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে আছেন র‌্যাবের মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ, র‌্যাব-৭ প্রধান লে.কর্নেল মিফতাহ উদ্দিন আহমেদ প্রমুখ।