কুমিল্লার মুরাদনগরে সাড়ে ৩ মাস পর কবর থেকে লাশ উত্তোলন

আকিবুল ইসলাম হারেছ,কুমিল্লা প্রতিনিধিঃ কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার সদর ইউনিয়নের দিলালপুর গ্রামের মৃত আব্দুল জব্বারের ছেলে আলম সরকারে (৪৭) মৃত্যুর রহস্য উদঘাটনে দাফনের তিন মাস ১৪ দিন পর আদালতের নির্দেশে কবর থেকে লাশ উত্তোলন করা হয়েছে। মঙ্গলবার (১৩ নভেম্বর) দুপুরে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) রায়হান মেহবুবের উপস্থিতিতে লাশ উত্তোলন করে তার নেতৃত্বে সদর উপজেলার দিলালপুর কুমিল্লা পুলিশ ব্যুারো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

মামলার অভিযোগ ও মৃত আলমের স্ত্রীর সাথে কথা বলে জানা যায়, ১৪ বছর প্রবাস জীবনের সকল উপার্জন তার বড় ভাই আব্দুল বাতেনের ব্যাংক একাউন্টে পাঠায় আলম। বিদেশ থেকে ফেরৎ এসে সেই টাকার হিসেব চাইলে দুই ভাইয়ের মধ্যে দূরত্ব সৃষ্টি হয়।পরে পৈতৃক জমি ভাগ বাটোয়ারা নিয়েও পারিবারিক দ্বন্দ্বের জেরে মৃত আলম স্ত্রী ও চার কন্যা সন্তান নিয়ে আলাদা বসবাস করছিলেন এবং জীবিকার তাগিদে স্থানীয় বাজারে একটি চায়ের দোকান দেন। গত ৩০ জুলাই সোমবার সকালে তার স্ত্রী সালমা আক্তার দোকানে গিয়ে স্বামীর মৃতদেহ দেখতে পায়।

তার পাশে ছেড়া বালিশ শরীরে আঘাতের চি‎হ্ন দেখে সালমা মনে করেন, স্বামীকে হত্যা করা হয়েছে। ফলে সালমা আক্তার ভাশুর আবদুল বাতেন ও তার দুই ছেলে হাসান এবং মামুনের নামে কুমিল্লা আদালতে অভিযোগ দায়ের করেন। স্ত্রী উত্তোলন পূর্বক ময়না তদন্তের জন্য কুমিল্লার ৮ নম্বর আমলী আদালতে আবেদন করেন। আদালতের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট টমো. ইফরানুর রহমান চৌধুরি লাশ উত্তোলন পূর্বক ময়না তদন্তের নির্দেশ প্রদান করেন এবং রহস্য উদঘাটনের জন্য কুমিল্লা পুলিশ ব্যুারো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) কে দায়িত্ব দেওয়া হয়। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পিবিআই পুলিশের উপ-সহকারী বেলাল আাহমেদ বলেন, ময়নাতদন্তের জন্য লাশ উত্তোলন করেছি, রির্পোটের আলোকেই আমাদের পরবর্তী কর্মসূচি নিব।