গুরুদাসপুর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানপদে লড়তে চান মোহাম্মদ আলী মোল্লা

নাজমুল হাসান নাহিদ, গুরুদাসপুর (নাটোর) প্রতিনিধিঃ আসন্ন উপজেলা নির্বাচনে গুরুদাসপুর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান হয়ে মানুষের সেবা করতে চায় গুরুদাসপুর উপজেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি মোহাম্মদ আলীমোল্লা (বি.এ অনার্স এম.এ বাংলা)।

তিনি সৎ, মেধাবী, সু-শিক্ষিত। বঙ্গবন্ধুরসোনার বাংলায় জননেত্রী শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়তে তিনি আগেও সক্রিয় ভূমিকা রেখেছিলেন আগামীতেও রাখতে চান। উন্নয়নের মহাসড়কে বাংলাদেশ। এই উন্নয়ন অব্যাহত রাখতে গুরুদাসপুর উপজেলাকে আধুনিকতায় রুপান্তিত করার জন্য ও গ্রামকে শহরে রুপান্তরিত করতে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানপদে তিনি লড়তে চান।

মোহাম্মদ আলী মোল্লা ১৯৭৯ সালে জন্মগ্রহন করেন উপজেলার ধারাবারিষা ইউনিয়নের খাঁকড়াদহ গ্রামে। তিনি খাঁকড়াদহ গ্রামের মৃত. মোসলেম আলীমোল্লার ৪র্থ নাম্বার সন্তান। জন্ম আওয়ামীলীগ পরিবারেই। রাজনীতির হাতে খড়িবীরমুক্তিযোদ্ধা সোলাইমান আলী বিশ্বাসের হাত ধরে। যখন সে পঞ্চম শ্রেণীতে তখন থেকেই বঙ্গবন্ধুর ভাষন কানে যেতে না যেতেই সেই খানে হাজির।

কেননা তার হৃদয় জুড়ে তখন শুধু বঙ্গবন্ধুর প্রতিচ্ছবি। তিনি বঙ্গবন্ধুর আদর্শে আদর্শিত।তিনি যখন দশম শ্রেণীর ছাত্র তখন খাকড়াদহ ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। পরবর্তীতে তিনি ধারাবারিষা ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি ত্যাগী, নির্যাতিত নেতা মৃত আহাদ আলী মন্ডল হাদার সাথে সক্রিয় রাজনীতি করেন। এরপর ২০০১ সালে মিলন-সবুজ পরিষদে গুরুদাসপুর উপজেলা ছাত্রলীগের আইন সম্পাদক এবং ২০০২ সালে ধারাবারিষা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি নির্বাচিত হন।

১৯৯৬ সালের ১৫ই ফেব্রুয়ারীর নির্বাচনে বিএনপি, জামায়াত, শিবিরের বিরুদ্ধে সক্রিয় ভূমিকা পালন করেন। বিএনপি, জামায়াত, শিবিরের হাতে অনেক জুলুম, নির্যাতন, অত্যাচার সহ্য করেন এই নেতা। ২০০১ সালে বিএনপি সরকার ক্ষমতায় আসার পর নির্যাতিত হয়ে তিনি দীর্ঘদিন এলাকা ছাড়া হয়ে থাকেন।

২০০৩ সালে মৃত. আহাদ আলী মন্ডল হাদার সাথে গুরুদাসপুর উপজেলায় একটি ভাড়া বাসায় থেকেও রক্ষা পায়নি সে। কেননা বিএনপি,জামায়াত,শিবিরের অত্যাচারেতাকে উপজেলা ছেড়ে ঢাকামুখি হতে হয়েছিলো। শুধু তাই নয় ২০০৩ সালের শেষের দিকে তার আপন ছোট বোনের বিয়েতেও তিনি অংশগ্রহন করতে পারেন নি। তারপরেও ১/১১ এর সাহসী সৈনিকের ভূমিকা রেখেছিলেন।

২০১৪ সালের ৫ই জানুয়ারী নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতা মোকাবেলা করেন তিনি। তারুন্যের অহংকার, ছাত্র রাজনীতির ইতিবাচক ধারার প্রবর্তক, তরুন প্রজন্মের আদর্শ, সৎ, মেধাবী ও সু-শিক্ষিত এই নেতা বলেন, জেল-জুলুম, অনেক নির্যাতন সহ্য করার পরেও তিনি গুরুদাসপুর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে লড়তে চান। কেননা সমাজের অবহেলিত গরীব, দুঃখি মানুষের সেবা করতে চান তিনি। ঘুষ, দুর্নীতি, চাঁদাবাজ, মাদক, সন্ত্রাস, জঙ্গীবাদের বিরুদ্ধে বিগত দিনেও লড়েছেন ও লড়তে চান আগামীতেও।

মানুষের ভালবাসায় আজ আমি ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী। আমার আশা ও বিশ্বাস নির্বাচনে আমি বিপুল ভোটে জয়ী হবো। জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে আরো শক্তিশালী করতে গুরুদাসপুর উপজেলাকে ডিজিটাল উপজেলা গড়তে এবং জননেত্রী শেখ হাসিনার প্রথম শ্রেণীর দেশ ও নাগরীক জীবন ব্যবস্থা গড়ার প্রত্যয়ে আমাকে সহযোগিতা করুন।