ঠাকুরগাঁওয়ে মোটরসাইকেল ছিনতাইকারীকে উত্তম-মধ্যম

অন্তর রায়, ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি: ঠাকুরগাঁওয়ে মোটরসাইকেল ছিনিয়ে নেওয়ার সময় এনামুল হক (৩০) নামে একজনকে আটক করে উত্তম মধ্যম দিয়ে পুলিশে দিয়েছে স্থানীয় জনতা।

শুক্রবার দুপুরে সদর উপজেলার নারগুণ নালার হাট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। ভূক্তভুগি একই উপজেলার পতাকি গ্রামের আব্দুল ওহাবের ছেলে জালমুন হাসান বলেন, “সকাল থেকে একজন বার বার মোবাইলে কল দিয়ে বাহিরে আস্তে বলে। আমি বাড়ীর কাজ শেষ করে প্রতিদিনের ন্যায় বোনকে নিয়ে শহরের একটি নার্সিং হোমেটিউটিতে যাচ্ছিলাম। পথে নালার হাট এলাকায় এনামুল থামতে বলে।

থামা মাত্রয় আমাকে বলে মোটরসাইকেলটি তার ৬ মাস আগে হারিয়ে গেছে। এই বলে মোটরসাইকেলটি ছিনিয়ে নিয়ে যাওয়ার চেস্টা করে। স্থানীয়রা আসলে বলি ৫ বছর আগে মোটরসাইকেলটি আমি কিনেছি লাইসেন্সসহ সকল কাগজপত্র আমার আছে। আমার কাগজপত্র স্থানীয়রা মোটরসাইকেলের সাথে মিলিয়ে দেখলে সব ঠিক থাকায় পায়। কিন্তু ছিনতাইকারী ব্যক্তি কোন প্রকার কাগজপত্র দেখাতে না পারায় উপস্থিত স্থানীয়রা এনামুলকে উত্তম মধ্যম দেয়।”

নারগুণ এলাকার আতাউর রহমানের ছেলে স্থানীয় যুবলীগ নেতা এনামুল হক বলেন, কিছুদিন আগে মোটরসাইকেল চুরি হয়েছে। খবর পেয়েছি জালমুন হাসান আমার মোটরসাইকেটি চালাচ্ছে। তাই তাদেরকে থামিয়ে ছিলাম।

নারগুণ ইউপি সদস্য তহিদুল ইসলাম বলেন, শুনেছি এনামুলের কোন মোটরসাইকেল হারায়নি। বিনা কাগজে অন্যের মোটরসাইকেল নিজের দাবি করা ঠিক হয়নি। এর আগেও এরকম ঘটনা এনামুল ঘটিয়েছে। তাই ঘটনাটি পরিকল্পিত ও সন্দেহ জনক মনে হচ্ছে।

ঘটনাটি তদন্তকারী কর্মকর্তা ঠাকুরগাঁও সদর থানার উপপরিদর্শক দৌলা বলেন, খবর পাওয়ার পরে ঘটনা স্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনি। ভূল বুঁঝাবুঝির একটি ঘটনা ঘটেছিল। দুই পক্ষের সাথে আলোচনা সাপেক্ষ প্রাথমিক ভাবে মিমাংসা করা হয়েছে। আহত এনামুলকে উদ্ধার করে যুবলীগ নেতা সানাউল্লাহর মাধ্যমে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়েছে।

ঠাকুরগাঁও সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আশিকুর রহমান বলেন, লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।