ঠাকুরগাঁওয়ে হার্টের ছিদ্র নিয়ে জন্ম নেয়া সন্তানকে বাঁচাতে মায়ের আকুতি

অন্তর রায়, ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি: আজ থেকে প্রায় দুই বছর আট মাস আগে ঠাকুরগাঁও শহরের প্রাণকেন্দ্র আশ্রমপাড়ায় কাঠমিস্ত্রী সুকুমার সুত্রধর এর ঘরে জন্ম নেয় এক কন্যা শিশু।

শিশুর মা মমতা সুত্রধর সহ বাড়ীর অন্যান্য সদস্যরা মিলে আদর করে শিশুটির নাম রাখেন মিঠি। ইতিমধ্যে কেটে যায় বেশ কিছুদিন। তখনও কারও ধারণাই ছিলো না মিঠি সম্পুর্ণ স্বাভাবিকভাবে জন্ম নেয়নি। তার হার্ট ছিলো ছিদ্র।

জন্মের কয়েক মাস পর ঘন ঘন অসুস্থ্য হওয়া শুরু করলে শিশু ডাক্তারের শরানাপন্ন হনতারা। আর তখন তারা জানতে পারেন মেয়ের অসুস্থতার খবর। আকাশ ভেঙ্গে পড়ে সেই পরিবারে। তিন মেয়ে, এক ছেলে সহ ছয় সদস্যের পরিবারের রাতের ঘুম হারাম হয়ে যায়।

একদিকে সংসার খরচ আর অন্যদিকে সন্তানদের লেখাপড়ার খরচ যোগাতেই যেখানে হিমসিম সেখানে নতুন ভাবে যুক্ত হয় ছোট্ট শিশুর চিকিৎসা খরচ। হার্টে ছিদ্র নিয়ে জন্ম নেওয়া শিশু মিঠির মা মমতা সুত্রধর কান্না জড়িত কন্ঠে জানান, এক হাতের সংসারে যেখানে বাচ্চাদের লেখাপড়া খরচ আর সংসার খরচ চালাতেই হিমসিম সেখানে মিঠির চিকিৎসা চালানো দূঃসাধ্য হয়ে দাড়িয়েছে।

স্থানীয় চিকিৎসক ডা: শাহিন ও ডা: কে দেখানোর পর তারা অপারেশন করতে বলেছেন। কিন্তু অপারেশন খরচ সাত-আট লাখ টাকা লাগতে পারে শুনে বিভিন্ন লোকের কাছ থেকে হাত পেতে এবং বাড়ীর যা কিছু ছিলো সব বিক্রি করে দিয়ে স্থানীয়দের পরামর্শে মেয়েকে নিয়ে ভারতের চেন্নাইয়ে যাই। কিন্তু সেখানেও ডাক্তাররা বিভিন্ন চেকআপ করিয়ে অপারেশন করতে বলে এবং এতে খরচ হবে চার থেকে পাঁচ লাখ টাকা যা আমাদের পক্ষে যোগার করা কখনই সম্ভব নয়। ফলে চিকিৎসা ছাড়াই বাংলাদেশে ফেরত আসতে হয় তাদের।

এখন শিশুটির সুস্থ হওয়া নিয়ে সংশয়ে মা মমতা সুতত্রধর। মেয়েকে সুস্থ করতে লাগবে ছয় লখ টাকা। আরএ টাকা যোগার করা তার স্বামীর পক্ষে সম্ভব না। এজন্য তিনি সন্তানকে সুস্থ করে বাঁচিয়ে রাখতে সমাজের বিত্তবানদের প্রতি আর্থিক সহযোগিতা চেয়েছেন।

হার্টে ছিদ্র হওয়া মেয়েটিকে সাহায্য করতে চাইলে যোগাযোগ করুন তার বাবার মোবইল নাম্বারে(০১৭২৮৩৭৯০৭৯)। এছাড়াও ব্যাংকের মাধ্যমেও সাহায্য পাঠাতে পারেন- সঞ্চয়ী হিসাব নং-১৯১০৯০১০১০৯২০, সোনালী ব্যাংক, পুরাতন বাসস্ট্যান্ড শাখা, ঠাকুরগাঁও নাম্বারে।