দেশকে পরিচ্ছন্ন রাখতে কাজ করে চলেছে ‘বিডি ক্লিন ঠাকুরগাঁও’

অন্তর রায়, ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি: “পরিচ্ছন্নতা শুরু হোক আমার থেকেই” এ স্লোগানকে সামনে রেখে দেশকে পরিচ্ছন্ন রাখতে কাজ করে চলেছে বিডি ক্লিন ঠাকুরগাঁও নামের ঠাকুরগাঁওয়ের একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। নিজ জেলাসহ দেশের অন্য জেলা গুলিও পরিচ্ছন্ন রাখতে নিয়মিত ভাবেই কর্মসূচী পালন করছে এ সংগঠনটি।

ধারাবাহিক কাজের অংশ হিসেবে সংগঠনটি বৃহস্পতিবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত ঠাকুরগাঁও কোর্ট চত্তর ও ডিসি অফিস প্রাঙ্গন পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখতে কাজ করে।

জানাযায়, ২০১৬ সালের ৩রা জুন মাত্র ২৪ জন সদস্য নিয়ে কাজ শুরু করে সংগঠনটি। দেশকে পরিচ্ছন্ন রাখার মহৎ উদ্দেশ্য নিয়ে তারা দেশের বিভিন্ন জেলায় কার্যক্রম চালিয়ে যায় এবং পরবর্তীতে বিভিন্ন জেলায় তাদের সদস্য বাড়তে থাকে।

বর্তমানে ঠাকুরগাঁও, পঞ্চগড়, দিনাজপুর, রংপুর, বগুড়া, ঢাকা, ময়মনসিংহ, কুমিল্লা ও সিরাজগঞ্জসহ দেশের ৫৩টি জেলায় প্রায় ২৮ হাজার সদস্য রয়েছে সংগঠনটির। এর মধ্যে ঠাকুরগাঁওয়ে রয়েছে ২১০ জন সদস্য।

ঠাকুরগাঁও সদরে থেকে সংগঠনটি পরিচালনা করছেন ঠাকুরগাঁও সরকারী কলেজের গণিত বিভাগে মাস্টার্স ১ম বর্ষের ছাত্র মেহেরাব হোসেন এবং পীরগঞ্জ উপজেলা থেকে পরিচালনা করছেন পীরগঞ্জ সরকারী কলেজের বিবিএস ২য় বর্ষের ছাত্র মো: দোয়েল হোসেন। কথা হয় স্বেচ্ছাসেবী এ সংগঠনটির ঠাকুরগাঁওয়ের এ দুজন পরিচালকের সাথে।

মেহেরাব হোসেন জানান, আমরা প্রথমে গুটি কয়েক ছাত্র ছাত্রীদের সদস্য করে আমাদের এ কার্যক্রমটি শুরু করি। এখন দেশের ৫৩ টি জেলায় আমাদের টিম রয়েছে এবং আগামীতে আরো বাড়বে। আমরা একটি মহৎ উদ্দেশ্য নিয়ে কাজ চালিয়ে যাচ্ছি। আমাদের উদ্দেশ্য শুধু নিজ শহর সহ দেশকে পরিচ্ছন্ন রাখা নয়, বরং দেশের মানুষকে এ ব্যাপারে সোচ্চার করাই আমাদের লক্ষ্য।

সংগঠনটির কার্যক্রম নিয়ে দোয়েল হক জানান, আজ আমরা ২১০ জন সদস্যের মধ্যে ঠাকুরগাঁও ও পীরগঞ্জ এর ৩৫ জন সদস্য নিয়ে ঠাকুরগাঁও কোর্ট চত্তর পরিষ্কার করছি। আমরা সপ্তাহে একদিন কাজ করি এবং যেনি ইভেন্ট থাকে সেদিন শুধু একটা জায়গাকেই বেছে নেই যেনো সেটি একেবারে শতভাগ পরিচ্ছন্ন রাখতে পারি।

আজ আমরা এখানকার লোকেদের সৃষ্ট ময়লা আবর্জনা , গরুর গোবর সহ নানা ধরনের ময়লা পরিষ্কার করছি। গত সপ্তাহে আমরা পঞ্চগড়ে কাজ করেছি এবং আগামী সপ্তাহে কাজ করবো দিনাজপুরে।

ঠাকুরগাঁওয়ের জেলা প্রশাসক ড. কে এম কামরুজ্জামান সেলিম জানান, স্কুল কলেজের ছাত্র ছাত্রীরা এ ধরনের স্বেচ্ছাসেবী একটি সংগঠন করেছে এটাই বিশ্ময়কর। তারা যে মহৎ উদ্দেশ্য নিয়ে সংগঠন ও কাজটি পরিচালনা করছে তাতে আগামীর ভবিষ্যত উজ্জল দেখতে পারছি। এ ধরনের সংগঠন গুলির সাথে আমরা নিজেদের সম্পৃক্ত করতে পারলে আমরা গর্বিত মনে করবো।