নবীন শিক্ষার্থীদের বরণ করলো রাবি রিপোর্টার্স ইউনিটি

হাসান মাহমুদ, রাবি প্রতিনিধি: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক (সম্মান) প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থীদের বরণ করেছে রাবি রিপোর্টার্স ইউনিটি (রুরু)।

মঙ্গলবার বেলা ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের রাকসু ভবনের দ্বিতীয় তলায় রিপোর্টার্স ইউনিটির কার্যালয়ে নবীনদের বরণ করে নেয় সংগঠনটি।

অনুষ্ঠানে নবীনদের উদ্দেশ্যে জনসংগযোগ দফতরের প্রশাসক অধ্যাপক প্রভাষ কুমার কর্মকার বলেন, এখন তথ্য বিপ্লবের যুগ। এখন সকল সত্য-মিথ্যা সবার সামনে তুলে ধরে সাংবাদিকরা। তোমরা সেই পথেই এসেছো। যেকোন ঘটনায় অনুসন্ধানী মন জাগ্রত করে সত্যে অটল থেকে সঠিক সংবাদটি তুলে আনবে বলে আমার প্রতাশা। তোমরা সাংবাদিকতার মাধ্যমে দেশের বর্তমান উন্নয়নের অগ্রযাত্রাকে সমুন্নত রাখতে সাহায্য করবে।

প্রক্টর অধ্যাপক ড. লুৎফর রহমান বলেন, অন্য যেকোন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে রাবিতে শিক্ষার গুণগত মান বেশি। এখনকার শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা পড়াশোনা, গবেষণা নিয়ে ব্যস্ত থাকেন। এখানে গবেষণায় আমরা এগিয়ে। সেই বিশ্ববিদ্যালয়ে তোমরা ভর্তি হয়ে এসেছো, তোমাদের অভিবাদন। তোমরা এখন অসৎ সঙ্গ পরিহার করে সঠিক সঙ্গী ও সংগঠন বেছে নিবে। তোমাদের জন্য তেমনি একটি উপযুক্ত সংগঠন রাবি রিপোর্টার্স ইউনিটি।

নবীণদের উদ্দেশে ছাত্র উপদেষ্টা ড. লায়লা আরজুমান বলেন, একটি ভবনের ভিত্তি থাকে মাটির নিচে। তা কেউ দেখে না। ভিত্তি ছাড়া ভবন টিকে থাকে না। সেই কথায় তোমাদের এখন সাংবাদিকতার ভিত্তি। সেটিকে মজবুত করো। সেই ভিত্তি মজবুত করার এই সংগঠনটি প্রাকটিকাল ল্যাবের মতো। বিভাগে যা শিখবা তা এখানে তোমরা প্রয়োগ করবে।

গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সভাপতি আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, আমরা সম্প্রতি দেখছি সাংবাদিকতা যেভাবে হবার দরকার সেরকমটি হচ্ছে না। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা স্লোগান হিসেবে এর মার্কেট ভ্যালু থাকতে পারে। কিন্তু এটি লালন করা জরুরী। এর গভীরতা অনেক বেশি। সে রকমই সাংবাদিকতা চর্চা করা দরকার। শুধুই যদি বলতে থাকি মহান সাংবাদিকতা কিন্তু তা চর্চা না করি তাহলে কিছুই লাভ হবে না।

রাজশাহী সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি কাজী শাহেদ বলেন, আমরা চাইনা বাংলাদেশের গণমাধ্যম স্বাধীনতার চেতনা বিরোধী অপশক্তির হাতে যাক। যারা বলে গণমাধ্যম নিরপেক্ষ হবে, কথাটি সত্য নয়। আমি সত্যের পক্ষে, বাংলাদেশ ও মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে। রিপোর্টার্স ইউনিটিও সেরকমই সংগঠন যা মুক্তিযুদ্ধের চেতনার পক্ষে এবং তা লালন করে।

রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি মতুর্জা নুরের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক আহমেদ ফরিদের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মশিহুর রহমান, রাজশাহী সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক তানজিমুল হক, শিবলী নোমান, রুরুর সাবেক সভাপতি শিহাবুল ইসলাম, সাবেক সাধারণ সম্পাদক হুসাইন মিঠু ও আলী ইউনুস হৃদয় প্রমূখ।

অনুষ্ঠানে নবীনদের উদ্দেশ্যে অভিভাষণ বক্তব্য পড়ে শোনান রুরুর প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক জান্নাতুল মাওয়া মুমু। এসময় রিপোর্টার্স ইউনিটির কার্যনির্বাহী সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।