বগুড়ার শেরপুরে উন্নয়নের আরেক নাম ফার্মল্যান্ড গ্রীন অটো ব্রিক্সস

বাদশা আলম, শেরপুর (বগুড়া) প্রতিনিধিঃ উন্নয়নের জোয়ারে যখন সারাদেশ ভাসছে। সেখানে থেমে নেই বগুড়ার শেরপুরও। উত্তরাঞ্চলে তাই এবারই প্রথম উন্নয়নের ছোয়ায় নতুন মাত্রা যোগ করলো ফার্মল্যান্ড গ্রীন অটো ব্রিক্সস।

বগুড়া জেলার শেরপুর উপজেলার ভবানীপুর ইউনিয়নের গোড়তা গ্রামে এডিবি’র সহযোগিতায় ৪৬ বিঘা জমির উপর প্রায় দুই বছর ধরে নির্মান করা হয়েছে ফার্মল্যান্ড গ্রীন অটোব্রিক্সস কারখানাটি। পরিবেশ বান্ধব এ প্রতিষ্ঠানটিতে প্রায় দেড়’শর বেশী কর্মকর্তা কর্মচারী রয়েছে। যাদের মধ্যে স্থান পেয়েছে দরিদ্র সীমার নিচে বসবাস করা ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীরা। তারা এ রকম পরিবেশ বান্ধব প্রতিষ্ঠানে কাজ পেয়ে খুবই আনন্দিত।

গত বছরের ১৫ ডিসেম্বর থেকে সুন্দর ডিজাইনের ইট প্রস্তুত ও বিক্রি শুরু করেছে প্রতিষ্ঠনটি। ডিপার্টমেন্ট প্রধান মোঃ আব্দুর রাজ্জাক রাজু ও প্রোডাকশন ইনচার্জ ইঞ্জিনিয়ার মোঃ শফিকুল ইসলাম জানান, খুব সুন্দর, কম ওজন, সঠিক মাপ, কম তাপমাত্রা বহনকারী ও শব্দ প্রতিরোধক ইট তৈরী করা হয় এখানে।

কোন প্রকার হাতের স্পর্শ ছাড়া সম্পূর্ন আধুনিক মেশিনে ১.৫ এমএম এর নিচে মাটি পাউডার করে কাচা ইট তৈরী করা হয়। কয়লা দ্বারা গ্যাস উৎপাদন করে গ্যাসের তাপের মাধ্যমে ইটগুলো পোড়ানো হয়। যা একদম পরিবেশ বান্ধব। এখানে প্রায় ১২ ধরনের ইট প্রস্তুত করা হয় এবং প্রত্যেকটি ইট তিন রকমের হয়ে থাকে।

ফার্মল্যান্ড গ্রীন অটো ব্রিক্সস প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে ভবানীপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ বলেন, আমার ইউনিয়নের মধ্যে আধুনিক ও পরিবেশ বান্ধব একটি শিল্প কারখানা হওয়ায় আমরা খুবই আনন্দিত। এখানে আমার এলাকার কিছু হতদরিদ্র ও ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীদের কর্মসংস্থানের ব্যাবস্থা হয়েছে।

শুধু তাই নয়। এ প্রতিষ্ঠান উপলক্ষে কারখানার আশে-পাশে অনেক গুলো ব্যবসা প্রতিষ্ঠানো গড়ে উঠেছে। আমি আশা করি এমন প্রতিষ্ঠান যেন প্রত্যেক এলাকায় গড়ে ওঠে। তাতে আমাদের দেশ আরো উন্নত হবে।