আটক ভারতীয় পাইলটের বিষয়ে সিদ্ধান্ত জানিয়েছে পাকিস্তান

গত ১৪ ফেব্রুয়ারি ভারতনিয়ন্ত্রিত জম্মু-কাশ্মীরের পুলওয়ামায় দেশটির আধাসামরিক বাহিনীর গাড়িবহরে হামলায় অন্তত ৪৪ সেনা নিহত হয়। আর এই আত্মঘাতী হামলার দায় স্বীকার করেছে পাকিস্তানভিত্তিক জঙ্গি সংগঠনজইশ-ই-মোহাম্মদ। ভারত এ হামলার পেছনে পাকিস্তানের মদদ রয়েছে বলে দাবি করে আসছে। তবে পাকিস্তার বরাবরই বিষয়টি অস্বীকার করে আসছে।

আর কাশ্মীর নিয়ে সীমান্তে উত্তেজনার জেরে লাহোর থেকে অমৃতসারগামী যাত্রীবাহী ট্রেন বন্ধ করে দিয়েছে পাকিস্তান। আজ বৃহস্পতিবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) সকাল ৮টায় পাকিস্তানের লাহোর থেকে পাঞ্জাবের অমৃতসারের উদ্দেশ্যে ছাড়ার কথা ছিল সমঝোতা এক্সপ্রেসের। কিন্তু ট্রেনটি বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে পাকিস্তান। ভারতের গণমাধ্যম ইন্ডিয়া টুডে ও পাকিস্তানের ডনের অলনাইন ভার্সনের এ খবর প্রকাশ করে।

দুই দেশের এই উত্তেজনায় পাকিস্তানের হামলা মোকাবেলায় সীমান্তে ১৪ হাজারেরও বেশি বাঙ্কার নির্মাণ করেছে ভারত। পাকিস্তান হামলা করলে ওইসব বাঙ্কারে সীমান্তবর্তী লোকজনকে এখানে আশ্রয় দেয়া হবে। পাকিস্তানের পরমাণু হামলার হুমকির মুখে বাঙ্কার নির্মাণকে ভারতের যুদ্ধপ্রস্তুতি হিসেবেই দেখা হচ্ছে। বার্তা সংস্থা রয়টার্স, ব্রিটিশ গণমাধ্যম ডেইলি মেইল ও দ্য মিরর এ নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।

এদিকে, ভারত-পাকিস্তান সাম্প্রতিক উত্তেজনা প্রশমনে নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে কথা বলতে রাজি পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। একই সঙ্গে পাকিস্তানে আটক পাইলট অভিনন্দন বর্তমানকে ফিরয়ে দেয়ার ব্যাপারে আলোচনাতেও আপত্তি নেই পাকিস্তানের।

বৃহস্পতিবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) পাকিস্তানের জিও টিভিকে দেয়া সাক্ষাত্কারে দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কুরেশি এই কথা জানান।

তিনি বলেন, ভারতের সঙ্গে সংঘাত বাড়ানোর অভিপ্রায় নেই তাদের। তাই নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে আলোচনায় বসতে রাজি হয়েছেন ইমরান খান।

এদিকে, সূত্রের খবর, অভিনন্দনকে ফেরাতে ভারত কোনও রকম আপষে যাবে না নয়াদিল্লি। নিঃশর্তে অভিনন্দনকে ফেরানোর দাবিই জানাবে তারা।