ভারতের সঙ্গে আমাদের রক্তের সম্পর্ক: সৌদি যুবরাজ

আজ ২০ ফেব্রুয়ারি বুধবার ভারত সফররত সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের সঙ্গে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বৈঠকের পর যৌথ সংবাদ সম্মেলনে ভারতের সঙ্গে সৌদির বন্ধুত্ব অনেক পুরনো জানিয়ে সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান বলেছেন, ‘ভারতের সঙ্গে আমাদের রক্তের সম্পর্ক। আমাদের বন্ধুত্বের ইতিহাস অনেক পুরনো, এ সম্পর্ক আমাদের রক্তে প্রবাহমান। বিগত ৫০ বছরে এ সম্পর্ক আরও গভীর হয়েছে। অনেক বিষয়েই আমাদের যৌথ স্বার্থ রয়েছে।’

তাছাড়া সন্ত্রাসবাদকে ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য সবচেয়ে ভয়ঙ্কর হুমকি হিসেবে বিবেচনা করে সন্ত্রাসবাদ দমন ও এর পৃষ্ঠপোষকদের বিরুদ্ধে ভারত-সৌদি আরব যৌথভাবে কাজ করতে অঙ্গীকারবদ্ধ হয়েছে। সৌদি যুবরাজের সঙ্গে নরেন্দ্র মোদির বৈঠকে এ বিষয়ে একমত হয়েছে দু’দেশ। এরপর দিল্লির হায়দরাবাদ হাউসে অনুষ্ঠিত এ বৈঠকে বিনিয়োগ, পর্যটন, আবাসন, সংস্কৃতি ও মিডিয়া বিষয়ক পাঁচটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে।

এ সময় সংবাদ সম্মেলনে নরেন্দ্র মোদি বলেন, ‘কৌশলগত দিক বিবেচনায় সৌদির সঙ্গে আমাদের সামরিক সহায়তা বৃদ্ধি ও সম্প্রাসরণ বিষয়ে সফল আলোচনা হয়েছে।’

এ সময় পুলওয়ামা হামলার বিষয়ে ইঙ্গিত করে নরেন্দ্র মোদি বলেন, ‘এ বিষয়ে আমরা একমত হয়েছি যে, সন্ত্রাসবাদকে যারা সমর্থন ও পৃষ্ঠপোষকতা দেয়, যে কোনো মূল্যে তাদের প্রতিহত করতে হবে। সন্ত্রাসবাদের সঙ্গে যুক্ত দেশগুলোর সকল অপচেষ্টা রুখতে হবে।’

তাছাড়া ভারতের প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ‘ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে বিচ্ছিন্নতাবাদ ও সন্ত্রাসবাদের ভয়াল থাবা থেকে মুক্ত রাখতে শক্তিশালী একটি কর্মকৌশল প্রয়োজন। আমি অত্যন্ত আনন্দের সঙ্গে জানাচ্ছি যে, সৌদি আরব ও ভারত এ বিষয়ে অভিন্ন মত পোষণ করে।’

এ সময় সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান বলেন, ‘বিচ্ছিন্নতাবাদী ও সন্ত্রাসীদের দমনের বিষয়টি আমাদের উভয়ের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। আমাদের বন্ধু দেশ ভারতকে আমি বলতে চাই, সন্ত্রাসীদের দমনে আমরা ভারতকে সব ধরনের সহায়তা করব। এর জন্য তথ্যপ্রদানসহ যাবতীয় সব সহযোগিতা আমরা দেব। আগামী প্রজন্মের ভবিষ্যৎ সুরক্ষায় আমরা উভয় দেশ মিলেমিশে কাজ করব।’