সেন্টমার্টিন যাওয়া হলো না সাড়ে ৪ হাজার পর্যটকের

মোহাম্মদ আমিন, টেকনাফ (কক্সবাজার)প্রতিনিধি: টেকনাফের দমদমিয়া ঘাট থেকে ৭ টি জাহাজ প্রতিদিনের মত সেন্টমার্টিনের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। হঠাৎ বৈরী আবহাওয়ার কারণে ভ্রমনে আসা হাজারো পর্যটকের সেন্টমার্টিন যাওয়া অনিশ্চিত হয়ে মাঝপথ থেকে ফেরত এলেন দমদমিয়া জেটি ঘাটে। ফলে মাজ নদী থেকেই সেন্টমার্টিনগামী জাহাজগুলো ফেরত আনা হয়েছে। আর এতে প্রায় সাড়ে ৪ হাজার পর্যটকের সেন্টমার্টিন যেতে পারে নাই।

আজ ২৫ ফেব্রুয়ারি সোমবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে ছেড়ে যাওয়া হাজারো পর্যটক নিয়ে ৭টি জাহাজ নাফ নদীর মোহনায় শাহপরীরদ্বীপ ঘোলার চর এলাকায় অপেক্ষামান রয়েছে। পথিমধ্যে হাজারো পর্যটকের সেন্টমার্টিন যাওয়া অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে।

জাহাজগুলো আবহাওয়া পর্যবেক্ষণ করছেন। হয়ত অল্পক্ষণের মধ্যেই আবহাওয়ার পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে সেন্টমার্টিনের উদ্দেশ্যে রওয়ানা করবেন বলে জানা গেছে। পর্যটকবাহী জাহাজ কেয়ারী সিন্দাবাদের ব্যবস্থাপক মোঃ শাহ আলম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এদিকে সেন্টমার্টিনগামী বে- ক্রুজ জাহাজের পরিচালক আবুল কালাম জানান, প্রতিদিনের ন্যায় পর্যটক নিয়ে সেন্টমার্টিনের উদ্দেশ্যে রওয়ানা করি। হঠাৎ বৈরী আবহাওয়ার কারণে সাগরে বাতাসের গতিবেগ বৃদ্ধি পাওয়ায় ঘাটের কিছুদূর গিয়ে জাহাজ নোঙ্গর করে রেখেছি। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে পুনরায় সেন্টমার্টিনের উদ্দেশ্যে রওয়ানা করব। দুপুরের মধ্যে বাতাসের গতিবেগ না কমলে পর্যটকদের নিয়ে পুনরায় ঘাটে ফিরে এসে।

টেকনাফ কোস্টগার্ড স্টেশন কমান্ডার লে. ফয়জুল ইসলাম মন্ডল জানান, হঠাৎ বঙ্গোপসাগারে প্রচন্ড বাসাতের গতিবেগ বৃদ্ধি পাওয়ায় পর্যটকবাহী সেন্টমার্টিনের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাওয়া জাহাজগুলোকে সেন্টমার্টিন না যেতে নিষেধ করা হয়েছে। পুণরায় ঘাটে এসে পর্যটকদের নামিয়ে দেওয়ার জন্য জাহাজ কতৃপক্ষকে বলে দেয়া হয়েছে।

এ ব্যপারে টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. রবিউল হাসান জানান, বৈরী আবহাওয়ায় সাগরে প্রচন্ড বাতাসের কারণে সেন্টমার্টিনগামী জাহাজগুলিকে ফেরত আসতে বলা হয়েছে।