আবরারের আগেও এক তরুণীকে বাস চাপা দিয়েছিল এই সিরাজুল

বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালসের (বিইউপি) শিক্ষার্থী আবরার আহম্মেদ চৌধুরীকে চাপা দেওয়ার আগে আরও এক তরুণীকে চাপা দিয়ে আহত করেন ‘সুপ্রভাত’ পরিবহনের সেই বাসের চালক সিরাজুল ইসলাম।

এর আগে সিনথিয়া সুলতানা মুক্তা (২০) নামের ওই তরুণীকে সাহজাদপুরের বাঁশতলা এলাকায় চাপা দেন সিরাজুল। বর্তমানে তিনি চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

এদিকে পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে সিরাজুল জানিয়েছেন, পথচারী তরুণীকে চাপা দিয়ে তিনি পালিয়ে আসেন। এরপর নর্দ্দায় আববারকে চাপা দিলে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। তবে সেখান থেকেও পালানোর চেষ্টা করে ব্যর্থ হন তিনি।

গুলশান থানায় আবরারের বাবা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আরিফ আহমেদ চৌধুরীর দায়ের করা মামলাতেও ওই তরুণীকে চাপা দেওয়ার তথ্য উল্লেখ করা হয়েছে। মামলায় তিনি বেপরোয়া ও দ্রুতগতিতে বাস চালিয়ে পথচারীকে জখমসহ মৃত্যু ঘটনোর অভিযোগ এনেছেন। এতে চালক সিরাজুল ছাড়াও বাসের হেলপার, সুপারভাইজার ও বাস মালিককে অপরাধের সহযোগী হিসেবে আসামি করেছেন আবরারের বাবা।

এ ব্যাপারে গুলশান থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মাহবুবুর রহমান জানান, চালক সিরাজুলের ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে নেওয়া হলে আদালত তার সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।