ইসলাম বিদ্বেষের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের আহ্বান জানিয়েছেন এরদোগান

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগান নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের দুটি মসজিদে নারকীয় হত্যাকাণ্ডের ক্রমবর্ধমান ইসলাম বিদ্বেষের বিরুদ্ধে বৈশ্বিক লড়াইয়ের আহ্বান জানিয়েছেন ।

শুক্রবার (২২ মার্চ) ইস্তানবুলে মুসলিম পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের এক বৈঠকে এ আহ্বান জানান তিনি।

তিনি বলেন, হলোকাস্টের পর ইহুদি বিদ্বেষের বিরুদ্ধে যেভাবে লড়াই হয়েছে, ঠিক সেভাবেই মুসলিম বিদ্বেষের বিরুদ্ধে লড়াই করতে হবে। হলোকাস্টের মহাবিপর্যয়ের পর যখন ইহুদি বিদ্বেষের বিরুদ্ধে বিশ্বমানবতা লড়াই করেছে, ঠিক একইভাবে ইসলাম বিদ্বেষের বিরুদ্ধে লড়াই করে যাওয়া উচিত।

এর আগে ক্রাইস্টচার্চের দুটি মসজিদের শ্বেতাঙ্গ বর্ণবাদীর হামলায় অর্ধশত মুসল্লি নিহত হওয়ার পর তাদের দাফনের কাজ চলছে। গতকাল দেশটির পুলিশ জানিয়েছে, নিহতদের সবার পরিচয় শনাক্ত করা হয়েছে। আর নিহত এক মুসল্লির দাফন অনুষ্ঠানে শোকাহত এক মুসলিম যুবককে সান্ত্বনা দিতে বুকে টেনে নেন নিউজিল্যান্ডের এক পুলিশ কর্মকর্তা। ক্রাইস্টচার্চের দুটি মসজিদে এক অস্ট্রেলীয় শ্বেতাঙ্গ বর্ণবাদীর হামলায় অর্ধশত মুসলমান নিহত হওয়ার পরও দেশটি বলছে, মুসলমানরা এখানে নিরাপদ ও সুরক্ষিত থাকবে। খবর দিয়েছে এএফপি।

এদিকে, নিউজিল্যান্ডের পররাষ্ট্রমন্ত্রী উইনস্টন পেটারস বলেন, বিশেষভাবে মুসলিম সম্প্রদায়কে নিরাপত্তা ও সুরক্ষার নিশ্চয়তা দিয়েছি।

তুরস্কের ইস্তানবুলে ইসলামিক সহযোগিতা সংস্থার (ওআইসি) এক জরুরি বৈঠকে এ কথা বলেন।

তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুট কাভুসগলু মুসলমানদের প্রতি সংহতি বার্তার জন্য নিউজিল্যান্ডের প্রশংসা করেছেন।

তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বিশ্বজুড়ে ইসলামবিদ্বেষী পদক্ষেপের বিরুদ্ধে আমাদের অবস্থান। আমরা এখানে সেটিই দেখাতে চাই।

উল্লেখ্য, গত শুক্রবার ক্রাইস্টচার্চের দুটি মসজিদে আধা স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র নিয়ে হামলা চালায় অস্ট্রেলীয় বংশোদ্ভূত শেতাঙ্গ আধিপত্যবাদী জঙ্গি ব্রেনটন টেরেন্ট। ওই হামলায় ৫০ মুসল্লির প্রাণহানি ঘটে। আধুনিক নিউজিল্যান্ডের ইতিহাসে মসজিদে হামলার এ ঘটনাকে কালো অধ্যায় হিসেবে অভিহিত করেছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আরডান।