একজন ছাড়া সব মেয়র পদপ্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত

বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র পদে উপ-নির্বাচনে জাতীয় পার্টির মো. শাফিন আহমেদসহ চার প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে। শুধু আওয়ামী লীগের প্রার্থী মো. আতিকুল ইসলামে জামানত রক্ষা হয়েছে। আর এই জামানতের অর্থ সরকারি কোষাগারে জমা দেবেন রিটার্নিং কর্মকর্তা।

এ মেয়র নির্বাচনে ৮ লাখ ৩৯ হাজার ৩০২ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী মো. আতিকুল ইসলাম। আর তার নিকটতম প্রার্থী জাতীয় পার্টির মো. শাফিন আহমেদ (লাঙ্গল) পেয়েছেন ৫২ হাজার ৪২৯ ভোট। এছাড়া ন্যাশনাল পিপলস পার্টির মো. আনিসুর রহমান দেওয়ান (আম) পেয়েছেন ৮ হাজার ৬৯৫ ভোট, প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক পার্টির শাহীন খান (বাঘ) পেয়েছেন ৮ হাজার ৫৬০ ভোট ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. আব্দুর রহিম (টেবিল ঘড়ি) পেয়েছেন ১৪ হাজার ৪০ ভোট।

প্রদত্ত ভোটের আট ভাগের এক ভাগ ভোট তাদের কেউই পাননি। তাই তাদের জামানত বাতিল করে সরকারি কোষাগারে সে অর্থ জমা দেবেন রিটার্নিং কর্মকর্তা।

নির্বাচনী বিধিমালার ৪১ (৩) অনুসারে, একজন প্রার্থী নির্বাচনে প্রদত্ত ভোটের আট ভাগের এক ভাগের চেয়ে কম ভোট পেলে সংশ্লিষ্ট প্রার্থীর জামানত বাতিল হয়েছে যাবে। সিটি করপোরেশনের ভোটার সংখ্যা ২০ লাখের বেশি হলে মেয়র প্রার্থীকে জামানত দিতে হয় ১ লাখ টাকা।

মেয়র পদের এ উপ-নির্বাচনে ৩০ লাখ ৩৫ হাজার ৫৯৯ ভোটারের বিপরীতে ভোট পড়েছে ৯ লাখ ৪২ হাজার ৫৩৯টি (৩১.০৫ শতাংশ), যার আট ভাগের এক ভাগ হলো ১ লাখ ১৭ হাজার ৮১৭ ভোট। মেয়র পদের এ উপ-নির্বাচনে চার প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্তি থেকে নির্বাচন কমিশনের আয় ৪ লাখ টাকা।