ক্যাভিটিমুক্ত দেশ গড়ার প্রত্যয়ে পেপসোডেন্টের ‘ওয়ার্ল্ড ওরাল হেলথ ডে’ উদযাপন

আগামী ২১ মার্চ ক্যাভিটিমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে বাংলাদেশ ডেন্টাল সোসাইটিকে সাথে নিয়ে ২০ মার্চ ২০১৯ ‘ওয়ার্ল্ড ওরাল হেলথ ডে’ উদযাপন করলো পেপসোডেন্ট। এদিন অ্যাডভান্স ফর্মুলার টুথপেস্ট ‘সেনসিটিভ এক্সপার্ট বাই পেপসোডেন্ট’ লঞ্চ করা সহ আরও নানা কার্যক্রমের মাধ্যমে দিবসটি উদযাপন করে পেপসোডেন্ট। নতুন এই টুথপেস্ট ৩০ সেকেন্ডে দাঁতের শিরশির অনুভূতি দূর করে এবং এর আবারও ফিরে আসা বন্ধ করতে সাহায্য করে।

দিনব্যাপী চলা এ অনুষ্ঠানে পেপসোডেন্ট আয়োজিত বিভিন্ন কার্যক্রমও তুলে ধরা হয়। দেশজুড়ে সুস্থ হাসি নিশ্চিত করার লক্ষ্যে আয়োজিত স্কুল প্রোগ্রাম তার অন্যতম এবং এ উদ্যোগে পেপসোডেন্ট সাথে পেয়েছিলো বাংলাদেশ ডেন্টাল সোসাইটিকে।

Advertisement

অনুষ্ঠানে বাচ্চাদের দাঁত ব্রাশের জন্য রাখা হয়েছিলো বিশেষ আয়োজন। যেখানে সঠিক নিয়মে দাঁত ব্রাশের পাশাপাশি বাচ্চাদের দিনে-রাতে নিয়মিত দু’বার দাঁত ব্রাশ করতে উৎসাহিত করা হয়।

ইউনিলিভার বাংলাদেশ-এর বিউটি অ্যান্ড পার্সোনাল কেয়ার পরিচালক নাফিস আনোয়ার অনুষ্ঠানটিতে বক্তব্য রাখেন।

নাফিস আনোয়ার হাতুড়ে দাঁতের ডাক্তারদের ব্যাপারে সবাইকে সচেতন করেন। তাদের কাছ থেকে চিকিৎসা না নেয়ার ব্যপারেও তিনি পরামর্শ দেন। সেই সাথে দাঁত ও মাঢ়ির স্বাস্থ্যকে সুরক্ষিত ও নিরাপদ রাখতে সনদপ্রাপ্ত ডেন্টিস্ট এক্সপার্টদের গুরুত্ব তুলে ধরেন।

এদিকে, সম্প্রতি বিশ্বব্যাপী পরিচালিত ইউনিলিভার-এর এক গবেষণায় দেখা যায় প্রতি ৩ জন শিশুর ১ জন দাঁতের ব্যথায় ভুগেছে। দাঁতের এই সমস্যাগুলো বাচ্চাদের স্কুলে অনুপস্থিতি বাড়ায়। পাশাপাশি নানান সামাজিক ও শিক্ষামূলক কার্যক্রমে অংশ নেয়ার ব্যপারে অনীহা বাড়ায়। তাই নিশ্চিতভাবে দিনে-রাতে দুই বেলা দাঁত ব্রাশের ওপর সচেতনতা বাড়াতে হবে। গ্রহণ করতে হবে নানান উদ্যোগ, যা সচেতনতা সৃষ্টি করার পাশাপাশি পরিবর্তন আনবে দাঁত ব্রাশের অভ্যাসেও। আর এর ফলে কমবে দাঁত ক্ষয়ের মতো ভয়াবহ সব রোগের সম্ভাবনা।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন দেশের প্রায় ৩০০০ ডেন্টাল এক্সপার্ট।