তিন হাজার পর্যটক আটকা পড়েছে সেন্টমার্টিনে, সমুদ্র বন্দরে সতর্কতা সংকেত

বাংলাদেশের সমুদ্র বন্দর গুলোকে ৩ নম্বর সতর্কতা সংকেত দেখাতে বলেছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। বঙ্গোপসাগরে ঝড়ো হাওয়ার কারণে এ সতর্কতা জারি করা হয়েছে। আজ ৬ মার্চ বুধবার সকাল থেকে জাহাজ চলাচল বন্ধ রয়েছে। ফলে বেড়াতে যাওয়া তিন হাজার পর্যটক আটকা পড়েছে সেন্টমার্টিনে।

এদিকে আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, বজ্রমেঘের ঘনঘটা বাড়ায় উত্তর বঙ্গোপসাগর, বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকা এবং সমুদ্রবন্দরগুলোর উপর দিয়ে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। এ কারণে চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মোংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরকে তিন নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

তাছাড়া ঝড়ো হাওয়ার কারণে উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত সব মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত সাবধানে চলাচল করতে বলা হয়েছে।

এদিকে আবহাওয়ার আগামী বৃহস্পতিবারের পূর্বাভাসে বলা হয়েছে- চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের দুই-এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা/ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। তবে দেশের অন্যত্র আকাশ আংশিক মেঘলা এবং আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে।

এদিকে আজ বুধবার ভোর রাত থেকে সেন্টমার্টিনে ভারী বৃষ্টিপাত হয়েছে এবং সকাল থেকে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টিপাত হওয়াই অধিকাংশ পর্যটকরা হোটেল-মোটেল ও কটেজ থেকে বের হচ্ছেন না।

এ বিষয়ে সেন্টমার্টিন পুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক সেকান্দর আলী গণমাধ্যমকে বলেন, ‘আটকে পড়া পর্যটকেরা দ্বীপের ১০৬টি হোটেল-মোটেল ও কটেজে অবস্থান করছেন। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে পর্যটকরা সেন্টমার্টিন থেকে ফিরতে পারবেন।’

এদিকে টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. রবিউল হাসান বলেছেন, ‘সেন্টমার্টিনে বেড়াতে এসে রাত্রি যাপন করা প্রায় তিন হাজারের মতো পর্যটক আটকা পড়েছেন। আজো কোনো জাহাজ টেকনাফ থেকে ছেড়ে যেতে পারিনি। পরবর্তী নির্দেশ না পাওয়া পর্যন্ত এ নৌপথে জাহাজ চলাচল বন্ধ থাকবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘যারা দ্বীপে আছেন তাদের কাছ থেকে কোনো ধরনের অতিরিক্ত ভাড়া আদায় না করার জন্য বলা হচ্ছে এবং ভাটার সময় কোন পর্যটক যাতে সৈকতের পানিতে গোসল করতে না নামেন সে ব্যাপারে প্রচারণা চালানোর জন্য স্থানীয় ইউপির চেয়ারম্যানকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।’