প্রমাণ করা দরকার ছিল আমরাও শক্তিশালী: ইমরান খান

আজ ২৮ ফেব্রুয়ারি বৃহস্পতিবার সংসদ অধিবেশনের শুরুতেই নিজের বক্তব্য পেশ করেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। এ সময় তার ভাষণে ছিল বিনয়ের সুর। কারণ, তিনি বারবার বলছিলেন, তিনি শান্তি চান।

এদিকে সংসদে বক্তব্য শেষ করে বসে পড়েছিলেন ইমরান খান। এরপর হঠাৎ উঠে ইমরান খান বলেন, ‘স্পিকার মহাশয়, একটা কথা বলতে ভুলে গিয়েছি। আমাদের কাছে এক ভারতীয় পাইলট বন্দি আছেন। আমরা ঠিক করেছি, আগামীকাল তাকে ভারতের হাতে ফিরিয়ে দিবো।’ আর সঙ্গে সঙ্গে হাততালিতে ফেটে পড়ে পাকিস্তানের সংসদ। প্রায় সকলেই বিনাবাক্যে অভিনন্দনকে ফিরিয়ে দেয়ার প্রস্তাবকে স্বাগত জানান।

এ সময় ইমরান খান আরও বলেন, ‘‌পাকিস্তান শান্তির দেশ। তারা কখনই যুদ্ধের পথে যেতে চায় না। বরং চায়, সমস্ত দেশের সঙ্গে সুস্থ সম্পর্ক ফিরে আসুক। ভারতের সঙ্গেও সম্পর্ক খারাপ রাখতে চায় না পাকিস্তান। তাই সব সময়েই শান্তি বজায় রাখতে চায়। কিন্তু ভারত যদি পাকিস্তানের কোনও ক্ষতি করে, তাহলে পাকিস্তানও ভারতকে উত্তর দিতে বাধ্য হবে। তখন আমাদের কোনও কথা বলা যাবে না।’

ইমরান খান বলেন, ‘ভারত যদি বিমানবাহিনী না পাঠাতো, আমাদের পক্ষ থেকে নিয়ন্ত্রণরেখা বরাবর কোনও সেনা পাঠান হত না। কিন্তু পাকিস্তান বাধ্য হয়েই সেদিন বিমান বাহিনী পাঠিয়েছিল। কারণ এটা প্রমাণ করা দরকার ছিল আমরাও শক্তিশালী। তবে, আমরা এটাও মাথায় রেখেছিলাম, ভারতের আক্রমণের পর আমাদের দেশের কোনও ক্ষতি হয়নি।’

ইমরান খান বলেন, ‘তাই আমরা এমন কোনও হামলা করব না, যাতে ভারতে কারোর প্রাণহানি হয়। তাই আমরা কোথাও, কাউকে মারিনি। আগাগোড়া শান্তির প্রতি আমাদের আস্থা প্রদর্শন করেছি। আগেও তাই করব। আর সেই জন্যই শান্তির বার্তা দিতে আগামীকাল আমরা অভিনন্দন বর্তমানকে ভারতে পাঠিয়ে দিবো।’