মসজিদে হামলাকারী জঙ্গি ব্রেন্টন ‘ভালো ছেলে’

নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে হ্যাগলি ওভাল মাঠের খুব কাছের একটি মসজিদে সন্ত্রাসী হামলা হয়েছে। স্থানীয় সংবাদমাধ্যম নিউজিল্যান্ড হেরাল্ড জানিয়েছে, নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে দুটি মসজিদে শুক্রবার জুমার নামাজের সময় বন্দুকধারীর হামলায় অন্তত ৪৯ জন নিহত হয়েছেন । অন্তত ৪৮ জন আহত হয়েছেন। নিহতদের মধ্যে তিন বাংলাদেশি রয়েছেন। এর মধ্যে ড. আব্দুস সামাদ নামে একজন অধ্যাপকও রয়েছেন।এ ঘটনায় একজনকে আটক করেছে স্থানীয় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে বর্বরোচিত হামলা করে ৪৯ জন মানুষ মেরেছেন বলে অভিযোগ আনা বন্দুকধারী ব্রেন্টন ট্যারেন্ট। এরই মধ্যে আত্মপক্ষ সমর্থনে আনার জন্য কোনো আবেদন ছাড়াই পুলিশের হেফাজতে মূলহোতা অস্ট্রেলিয়ান বংশোদ্ভূত ব্রেন্টন ট্যারেন্টেকে রিমান্ডে নেওয়া হয়। ট্যারেন্টকে ৫ এপ্রিল পর্যন্ত রিমান্ড দিয়েছে আদালত। অর্থাৎ ২০ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে দেশটির আদালত।

তবে সেই জঙ্গি ব্রেন্টন ট্যারেন্টকে ‘ভালো ছেলে’ বলছেন তার দাদি জয়িস ট্যারেন্ট।

৯৪ বছর বয়সী ওই বৃদ্ধা ৪৯ জন মানুষ মারতে বিষয়টি শোনার পর প্রতিক্রিয়ায় তিনি বলেছেন, আমি বিশ্বাস করতে পারছি না ব্রেন্টন ৪৯ জন মানুষ মারতে পারে। এটা অবিশ্বাস্য। আমার নাতি সব সময়ই ভালো ছেলে।

তিনি বলেন, শক্রবার (১৫ মার্চ) দু’টি মসজিদে প্রার্থনারত অবস্থায় মুসলমানদের ওপর যেভাবে বর্বরোচিত হামলা চালানো হয়েছে, যেসব মানুষকে হত্যা করা হয়েছে, তার ঠাণ্ডা মাথার খুনি আমার নাতি হতে পারে না, আমি জানি।

ব্রেন্টনের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছে শুনে জয়িস ট্যারেন্ট বলেন, খবরটি পেয়ে আমরা খুব কষ্ট পেয়েছি। বিশেষ করে ব্রেন্টনের মা শ্যারন খুব ভেঙে পড়ে। ব্রেন্টনকে রিমান্ডে নেওয়া হয়েছে, খবরটি যখন আমরা পাই, তখন শ্যারন তার স্কুলে ক্লাস করাচ্ছিল।

ব্রেন্টনের মা শ্যারনকে শুক্রবার বিকেলে সাংবাদিকরা ফোন করেন। আর তখনও তিনি ম্যাক্লিন হাইস্কুলে ছিলেন। এসময় তিনি জানতে পারেন তার ছেলে ব্রেন্টনের বিরুদ্ধে ভয়ঙ্কর হত্যার অভিযোগ আনা হয়েছে।