আমাদের বিচার চাওয়াই ভুল ছিল: ধর্ষিতার মা

রাজধানীর বনানীর রেইনট্রি হোটেলে দুই ছাত্রীকে ধর্ষণের মামলার বিচার চাওয়াই ভুল ছিল বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন এক তরুণীর মা। সাক্ষী দেওয়া নিয়ে হয়রানির অভিযোগ তুলে আজ ৮ এপ্রিল সোমবার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল থেকে বেড়িয়ে যাওয়ার সময় তিনি এ অভিযোগ করেন। আজ আসামি পক্ষের আইনজীবী অসুস্থ থাকায় ধর্ষিতার জেরা পিছিয়ে আগামী ৬ মে ধার্য করেছেন ট্রাইব্যুনাল।

অন্যদিকে ধর্ষিতাদের পক্ষের আইনজীবী ফারুক আহমেদ মনে করেন, আলোচিত ও গুরুত্বপূর্ণ মামলা হিসেবে মামলাটি দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে পাঠানো হলে এতদিনে বিচার শেষ হয়ে যেত।

আজ সোমবার মামলাটিতে একজন ধর্ষিতাকে আসামিপক্ষের আইনজীবীদের জেরার জন্য দিন ধার্য ছিল। এ উদ্দেশ্যে আসামিদের কারাগার থেকে আদালতে হাজির করা হয়। আসামি নাঈম আশরাফের কাছে ধর্ষিত ভিকটিমও সাক্ষ্য দিতে মায়ের সঙ্গে হাজির হন আদালতে।

কিন্তু আসামি নাঈম আশরাফের পক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট মাহবুবুর রহমান অসুস্থ মর্মে অন্যান্য আসামিদের আইনজীবীরা সময় প্রার্থনা করেন। কারণ হিসেবে তিনি বলেন, ‘আসামি নাঈম আশরাফের পক্ষে জেরা চলমান। তার জেরা শেষ না হলে অন্য আসামিদের পক্ষে জেরা করা সমীচীন হবে না।’

এ সময় ঢাকার ৭ নম্বর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. খাদেম উল কায়েশ কাঠগড়ায় থাকা ভিকটিমের কাছে জিজ্ঞেস করেন, ‘আপনি কবে আসতে পারবেন।’ জবাবে ভিকটিম ‘যেকোনো বৃহস্পতিবার’ তারিখ ধার্যের কথা বলেন।

এ সময় উপস্থিত এক আইনজীবী জানান, ১৫ দিনের আগে আইনজীবী মাহবুবুর রহমান সুস্থ হবেন না। ভিকটিমের মা বলেন, ‘তিনি ৫ তারিখের পর ২০ দিন আসতে পারবেন না।’ সব কিছু বিবেচনায় নিয়ে বিচারক ৬ মে দিন ধার্য করেন।

এদিকে ট্রাইব্যুনাল থেকে ভিকটিমকে নিয়ে বেড়িয়ে যাওয়ার সময় সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ভিকটিমের মা বলেন, ‘আমাদের বিচার চাওয়াই ভুল ছিল। আজ ছয় দিন মেয়েকে নিয়ে ট্রাইব্যুনালে আসলাম, তার মধ্যে তিন দিন বিচার কাজ হয়েছে, আর তিন দিন ফিরে গেলাম।’

‘তাছাড়া আরও দুই-তিন দিন এমনিই আসতে হয়েছে। এ হয়রানি আর ভালো লাগছে না। মেয়েটি সম্প্রতি একটি চাকরিতে ঢুকেছে। আমি নিজেও উত্তরবঙ্গে একটি কলেজে চাকরি করি। এভাবে বারবার আসা আমাদের পক্ষে সম্ভব নয়। এ কারণেই মানুষ বিচার চায় না।’